প্রাথমিক শিক্ষকদের কর্মবিরতির মধ্যেও আজ হচ্ছে ৫ম শ্রেণির মডেল টেস্ট

মিরাজুল কবীর টিটো:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষকদের চলমান কর্মবিরতির মধ্যে আজ বুধবার থেকে শুরু হবে পঞ্চম শ্রেণির মডেল টেস্ট পরীক্ষা। পরীক্ষায় অংশ নেবে ৩ হাজার ৩৮৯ জন শিক্ষার্থী। শিক্ষকদের পূর্ব ঘোষিত অর্ধদিবস কর্মবিরতি শেষে দুপুর ১ টা থেকে পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন শিক্ষক নেতারা। জেলা শিক্ষা অফিসার জানিয়েছে অভিভাবকদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনো কারণ নেই। যথা সময়ে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে আন্দোলনের সাথে জড়িত শিক্ষকদের তালিকা হচ্ছে বলে নিশ্চিত করেছেন একটি সূত্র।
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের ১১তম ও প্রধান শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড স্কেল নির্ধারণের দাবি আদায়ের লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত সোমবার কর্মবিরতি পালন করছে প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আজ অর্ধদিবস ও আগামীকাল বৃহস্পতিবার পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করবে শিক্ষকরা। এদিকে পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী আজ বুধবার থেকে ৫ম শ্রেণির মডেল টেস্ট পরীক্ষা শুরু হবে। প্রথম দিন অনুষ্ঠিত হবে ইংরেজি পরীক্ষা। মডেল টেস্ট শুরু হবে দুপুর ১ টা থেকে। পাশাপাশি শিক্ষকদের অর্ধদিবস কর্মবিরতি শেষ হওয়ার কথা দুপুর ২টায়। পরীক্ষার স্বার্থে এক ঘণ্টা আগেই শিক্ষকরা কর্মবিরতি ছেড়ে দেবেন। যার ফলে মডেল টেস্ট যথা সময়ে শুরু করা হবে। কোনোভাবেই পরীক্ষা শুরুতে বিঘœ ঘটবে না বলে জানান জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শেখ অহিদুল আলম। সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সিরাজুল ইসলাম জানান, আগে সকাল ১১ টায় মডেল টেস্ট শুরু হতো। এতে করে শিশু শ্রেণি থেকে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠ দানের বিঘœ ঘটতো। তাদের কথা বিবেচনা করে এ পরীক্ষার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে দুপুর ১টায়। সমাপনী পরীক্ষা নেয়ার আগে প্রতিবছর মডেল টেস্ট পরীক্ষা নেয়া হয়। সেই ধারাবাহিকতায় বুধবার যথা সময়ে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। মঙ্গলবার সকল বিদ্যালয়ে প্রশ্ন পৌঁছে গেছে।
যশোর সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম জানান, শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা যথা সময়ে নেয়া হবে। আন্দোলনের কারণে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের কোনো ক্ষতি হোক এটা আমরা চাই না। ইন্সটিটিউট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিরিনা সুলতানা, উপশহর শহীদ স্মৃতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহাজাদ হোসেন বাবুসহ আন্দোলনরত শিক্ষকরা একই কথা বলেন।
এদিকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শেখ অহিদুল আলম জানান যেসব শিক্ষক আন্দোলন করছেন তাদের তালিকা তৈরি করার জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর থেকে চিঠি এসেছে। হয়তো তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।