প্রতারণা !

নিজস্ব প্রতিবেদক:
যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি এক আসামির হার্টের চিকিৎসার কথা বলে লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা হয়েছে। বিষয়টি পুলিশ জানতে পারায় ওই চক্র পিছু হটে।
যশোর সদরের চাঁদপাড়া গ্রামের রাবেয়া বেগম অভিযোগ করেন, তার স্বামী রকিব উদ্দিন চাঁদপাড়া দারুল উলুম খাদেমুল কুরআন মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা এবং শিক্ষক। মাদ্রাসার সুনাম নষ্ট করতে একটি মহল তার স্বামীর নামে ওই প্রতিষ্ঠানের এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে কোতোয়ালি থানায় মামলা (নম্বর ৭৯/২৯.১০.১৯) দায়ের করে। এ ঘটনায় গ্রেফতারের পর তিনি যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন।
রাবেয়া বেগম অভিযোগ করেন, ‘বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) বিকালে ০১৭৮৭ ৪৩১৯০৬ নম্বর থেকে তার মোবাইল ফোনে কল দিয়ে জানানো হয়, রকিবের হার্টে ব্লক ধরা পড়েছে। হার্টের ৯০ ভাগ নিষ্ক্রিয়। ২৫ মিনিটের মধ্যে রিং না পরালে তিনি মারা যাবেন। তাকে যশোর কারাগার থেকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ডা. শহিদুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে তার হার্টে রিং পরানো হবে। কিছুক্ষণ পরে ডা. সাহেব আপনাকে ফোন দেবেন। আপনি বিস্তারিত তার কাছ থেকে জেনে নেবেন। তবে আপাতত বিকাশে ১ লাখ টাকা দেন। বাদবাকি পরে দিলে হবে।’
তিনি বলেন, ‘১০ মিনিট পরে ০১৮২৫ ০২৮২৮৮ নম্বর থেকে ফের আরেকটা কল আসে। ফোনদাতা নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে বলেন, এখনই টাকা দেন। না হলে আপনার স্বামীকে বাঁচানো যাবে না। পরে আমি এ ঘটনা কোতোয়ালি পুলিশকে জানাই। খুব আতঙ্কের মধ্যে আছি।’
কোতোয়ালি থানার এস আই শারমিন আক্তার বলেন, ‘রকিব উদ্দিনের স্ত্রী রাবেয়া বেগম আমার কাছে এই অভিযোগটি করেছেন। তাকে পরামর্শ দেয়া হয়েছে, এটি কোনো প্রতারক চক্রের কাজ। কাউকে টাকা দিতে নিষেধ করেছি।’
কোতোয়ালি থানার আরেক এসআই মাহবুব আলম বলেন, ‘ঘটনা শোনার পরে ওই চক্রের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলেছি। টাকা পাঠানোর জন্য বিকাশ নম্বর চাইলে চক্রটি বুঝতে পেরে তাদের দুটি নম্বরই বন্ধ করে দিয়েছে।’
যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার আবু তালেব বলেন, ‘রকিব উদ্দিনের শারীরিক অবস্থা ভালো আছে। তার স্ত্রীর কাছে কল দিয়ে টাকা চাওয়ার বিষয়টি কোনো প্রতারক চক্রের কাজ হতে পারে। এই চক্র এর আগেও কারাগারে বন্দিদের নামে একাধিকবার টাকা নিয়েছে। এই চক্রকে ধরা দরকার।’