ভৈরব নদ খননের মাটি মালিকানাধীন জমিতে ফেলে গাছ লাগানোর অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
যশোর সদরের বিজয়নগর, ঘোনা, খোজারহাট, মিরাপুর, দৌলতদিহি, চুড়ামনকাটিসহ বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দাদের ভৈরব খনন এখন গলার কাটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভৈরব নদের কাটা মাটি পাশের মালিকানাধীন জমিতে ফেলে গাছ লাগিয়ে দখল করে নিচ্ছেন পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ। স্থানীয়ভাবে প্রতিবাদ করে প্রতিকার না পেয়ে বুধবার যশোর জেলা প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি ও মানববন্ধন করেছেন গ্রামবাসী।
প্রেসক্লাব যশোরের সামনে আয়োজিত এ মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সঞ্জয় দেবনাথ, কোবাদ আলী, আব্দুর রশীদ, শহিদুল ইসলাম, সোলাইমান হোসেন, আজিজ মোল্লা প্রমুখ।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়েছে, সদর উপজেলার সদরের বিজয়নগর, ঘোনা, খোজারহাট, মিরাপুর, দৌলতদিহি, চুড়ামনকাটিসহ বিভিন্ন গ্রামের পাশে ও মধ্যে দিয়ে বয়ে গেছে ভৈরব নদ। সম্প্রতি সরকার পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে ভৈরব নদ খনন কাজ শুরু করেছে। এর মধ্যে বিজয়নগর, ঘোনা, খোজারহাট, মিরাপুর, দৌলতদিহি, চুড়ামনকাটিসহ বিভিন্ন গ্রামের মধ্যে ভৈরব নদ খনন হয়ে গেছে। নদের খননকৃত মাটি পাড় ও পাশের মালিকানাধীন জমিতে রাখা হয়েছে। এতে জমিতে চাষাবাদের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। এরমধ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ড নদের দুই ধার দিয়ে গাছ লাগাতে যেয়ে মালিকানাধীন জমিতে গাছ লাগিয়ে দখল করে নিচ্ছেন। এ ব্যাপারে স্থানীয় ভাবে প্রতিবাদ করে কোনো ফল হয়নি। মালিকানাধীন জমির দখলধার উচ্ছেদের জেলা প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি ও মানববন্ধনের মাধ্যমে এর প্রতিকার চেয়েছেন গ্রামবাসী।