যশোরে ৫ উড়ন্ত ছিনতাইকারী আটক, বাইক ও মোবাইল ফোন উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক:
যশোরে দুর্ধর্ষ ৫ উড়ন্ত ছিনতাইকারীকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। তাদের কাছ থেকে তিনটি মোটরসাইকেল ও ছিনতাই করা একটি মোবাইল ফোনসেট উদ্ধার করা হয়েছে। কয়েকদিন ধরে উড়ন্ত ছিনতাইকারীদের উৎপাত বেড়ে যাওয়ায় তৎপর হয়ে ওঠে পুলিশ। এ কারণে পুলিশ বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে অপরাধীচক্রের ৫জনকে আটক করতে সক্ষম হয়েছে।
গত বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে দুর্ধর্ষ এই পাঁচ ছিনতাইকারীর বিষয়ে তথ্য দেন। এ সময় ডিবির ওসি মারুফ আহম্মদ, এসআই শামীম হোসেন, এসআই অরুণ কুমার দাস, এসআই সোলায়মান আক্কাস উপস্থিত ছিলেন।
আটককৃতরা হলো, শহরের পশ্চিম বারান্দীপাড়ার অশোক দেবনাথের ছেলে অনুপ দেবনাথ (২৪), ষষ্টিতলা পাড়ার জিলা স্কুলের সামনে বাইলেনের দীপক কুমার দে’র ছেলে সঞ্জীব কুমার দে ওরফে নান্টু (২৭), পূর্ববারান্দীপাড়া মালোপাড়ার রফিকুল ইসলামের ছেলে মুজাহিদুল ইসলাম সেতু (২৮), সদর উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের পশ্চিমপাড়ার ইকবাল হোসেন বাবুর ছেলে সিজান (২৩) এবং একই গ্রামের মৃত তরিকুল ইসলামের ছেলে সাইফুল ইসলাম (২০)।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, গত ৩১ অক্টোবর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ডাক্তার আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নওশাদ বানু তার মেয়েকে নিয়ে রিকসাযোগে মাইকপট্টি থেকে মিশনপাড়ার বাড়িতে ফিরছিলেন। তাদের বহনকারী রিকসাটি পুলিশ সুপারের কার্যালয় পার হয়ে ক্যাথলিক গির্জার জনমা কেন্দ্রের সামনে পৌঁছানো মাত্র পেছন থেকে ৩টি মোটরসাইকেলে এসে ৫ উড়ন্ত ছিনতাইকারী তার হাতে থাকা ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে যায়। ওই ব্যাগের মধ্যে নগদ ৫ হাজার টাকা, ২০ হাজার টাকা মূল্যের একটি মোবাইল ফোন সেট, বাড়ির বিভিন্ন প্রকার তালার চাবি, চশমা, জনতা ও রুপালী ব্যাংকের হিসাবের চেক বই, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের এটিএম কার্ড ও বিভিন্ন প্রকার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছিল। ছিনতাইকারীদের মধ্যে দুইজনকে তিনি ভালভাবে দেখতে পান। পরবর্তীতে পুলিশের কাছে অভিযোগ দেয়ার পর পুলিশ অফিসের সামনে স্থাপন করা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করে। ওই ফুটেজ দেখে দুই ছিনতাইকারীকে তিনি শনাক্ত করেন এবং কোতয়ালি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এছাড়া ১ নভেম্বর রাত ৮টার দিকে যশোর মুজিব সড়কের সার্কিট হাউজের সামনে সাংবাদিক নেতা তৌহিদুর রহমানের স্ত্রী রোজিনা খাতুন ছিনতাইকারীদের হামলার শিকার হন। তিনি দড়াটানা থেকে রিকসাযোগে বেজপাড়া পিয়ারী মোহন রোডস্থ বাড়িতে ফিরছিলেন। কিন্তু ছিনতাইকারীরা তার কাছ থেকে কিছু ছিনিয়ে নিতে পারেনি। এ দুইটি ঘটনা অনুসন্ধান করে পুলিশ। সিসি ক্যামেরা থেকে নেয়া ফুটেজ দেখে শহরের বারান্দীপাড়া, উপশহর ও বাহাদুরপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তারা ছিনতাইয়ের কথা স্বীকার করে। এ ছাড়াও শহরের বিভিন্ন এলাকায় তারা এ ধরনের ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। তাদের দখল থেকে তিনটি মোটরসাইকেল, ছিনতাই হওয়া ৫ হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ফোনসেট জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় কোতয়ালি থানায় দ্রুত বিচার আইনে একটি মামলা হয়েছে। এই মামলায় ৫ জনকে আটক দেখিয়ে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।