মাইক্রোবাসে নারীর বাঁচাও বাঁচাও চিৎকার শুনে ধাওয়া করে উদ্ধার, আটক ৩

৥পাচার মামলা থেকে বাঁচতে আসামির
সাথে বিয়ের চেষ্টায় অপহরণ>
গোলাম মোস্তফা, রূপদিয়া (যশোর) :
সিনেমার দৃশ্যের মতো এক নারী মাইক্রোবাসের জানালা দিয়ে মুখ বের করে বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করতে লাগলেন। আর কয়েক যুবক তা শুনে মোটরসাইকেল নিয়ে মাইক্রোবাসের পিছু ধাওয়া করে ওই নারীকে উদ্ধারও করলো। সাথে আটক করা হলো এক নারীসহ তিনজনকে। পালিয়ে গেলো আরো দুইজন। পরে আটককৃতদের পুলিশে সোপর্দ করা হয়। ঘটনাটি ঘটেছে গত সোমবার বিকেলে যশোর খুলনা মহাসড়কের সদরের রাজারহাট থেকে রূপদিয়া পর্যন্ত।
রূপদিয়ার ঈগল পে্েট্রাল পাম্পের কাছে পাচারকারী আটক হয়েছে এমন সংবাদ পেয়ে সংবাদকর্মীরা সেখানে গিয়ে জানতে পারেন একটি মাইক্রোবাস থেকে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। এরা হলো
অভয়নগর থানার বাঘুটিয়া গ্রামের মৃত এরশাদ আলীর ছেলে নজরুল শেখ(৭৫), বেনাপোল পোর্ট থানার নারায়ণপুর গ্রামের শাহিদা বেগম (৫৫) এবং মাইক্রোবাস চালক বেনাপোল পোর্ট থানার নারায়ণপুর গ্রামের নূর মোহাম্মদের ছেলে আজগর আলী (২৫)। সেখানে উদ্ধার করা হয় এক নারীকে (২০)। তার বাড়ি যশোরের অভয়নগর উপজেলার বুইকারা গ্রামে।
উদ্ধার হওয়া ওই নারী জানিয়েছেন, মাস তিনেক আগে ভালো চাকরি দেয়ার কথা বলে অভয়নগরের সবুজসহ ৪/৫ জন তাকে ভারতে নিয়ে যায়। পরে তাকে একটি স্থানে নিয়ে দালালের কাছে বিক্রি করে দেয় চক্রটি। বিষয়টি ওই নারীর পরিবারের লোকজন জানতে পারে এবং ওই চক্রের চারজনের বিরুদ্ধে অভয়নগর থানায় একটি মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করছে সিআইডি পুলিশ। পুলিশের চাপে পড়ে আসামিরা তাকে ভারত থেকে তিনদিন আগে ফিরিয়ে নিয়ে আসে বেনাপোলে। রোববার তাকে বিয়ের জন্য চাপ দেয়া হয় আটক আজগর আলীর সাথে। কিন্তু তিনি রাজি হননি। কারণ তিনি বিবাহিত।
আসামিরা তাকে টেনে হেচড়ে মাইক্রোবাসে করে একটি কাজী অফিসে নিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু তিনি কৌশলে না করেন। পরে তাকে অভয়নগরের দিকে নিয়ে যাচ্ছিল। যশোরের রাজারহাটে পৌছানো মাত্রই লোকজন দেখে তিনি মাইক্রোবাসের জানালা দিয়ে মুখ বের করে বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করেন। পরে রূপদিয়া বাজার ছাড়িয়ে রাস্তার পাশের একটি পেট্রোল পাম্পের কাছে গিয়ে কয়েকটি মোটরসাইকেল মাইক্রোবাসের সামনে আড় করে। সে সময় মাইক্রোবাস আর চলতে পারেনি। মাইক্রোবাস থেকে লাফিয়ে দুইজন পালিয়ে যায়। পরে জানতে পারেন, তার বাঁচাও চিৎকার শুনে রাজারহাট থেকে কয়েক যুবক মোটরসাইকেল নিয়ে পিছু ধাওয়া করে।
যশোরের নরেন্দ্রপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই গোলাম মোর্ত্তজা জানিয়েছেন, সংবাদ পেয়ে ওই পেট্রোল পাম্পের কাছে গিয়ে মাইক্রোবাসসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে। এবং মেয়েটিকে উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি জানতে পারেন অভয়নগর থানায় দায়ের করা একটি পাচার মামলার ভিকটিম ওই নারী। ফলে অভয়নগর থানায় সংবাদ দিলে সেখান থেকে পুলিশ এসে ওই নারী ও আটক তিনজনকে নিয়ে যায় পুলিশ। তিনি আরো বলেছেন, পরে মাইক্রোবাসটি চালকের কাছে দিয়ে দেয়া হয়েছে।