জেলায় জেলায় ৪৫ টাকা কেজির পেঁয়াজ

# ক্রেতা সামাল দিতে হিমসিম টিসিবির ডিলাররা>
স্পন্দন ডেস্ক:
সোমবার থেকে জেলায় জেলায় টিসিবির মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হয়েছে। তুরস্ক থেকে আমদানি করা কম ঝাঁজের পেঁয়াজ ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। প্রথম দিনেই এ পেঁয়াজ পেতে হুমড়ি খেয়ে পড়ে ক্রেতারা। সব জেলাতেই ক্রেতা সামাল দিতে হিমসিম খেতে হয়েছে ডিলারদের। বিস্তারিত রিপোর্টে-
যশোর : যশোরের বাজারে পুরাতন দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচেছ ২২০ টাকা থেকে ২৪০ টাকায়, নতুন দেশি পেঁয়াজ ১৮০ টাকা। আমদানি করা পেঁয়াজ ১৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এরই মাঝে সোমবার থেকে হঠাৎ ঘোষণা ছাড়াই যশোরে চালু হয় টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি। দড়াটানায় মাত্র ৪৫ টাকা কেজি দরের পেঁয়াজ পেতে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে যায় পথচারীরা। অনেকে পেঁয়াজ না পেয়ে ফিরে গেছেন। ক্রেতারা জানিয়েছেন, বাজার সামাল দিতে টিসিবির মাধ্যমে আরো পেঁয়াজ সরবরাহ করা প্রয়োজন তাহলে দাম কমবে।
জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, টিসিবির ডিলার মেসার্স মাহফুজ টেড্রিং কর্পোরেশন পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে। পিকআপে করে শহরের দড়াটানায় বিক্রি করে। প্রথম দিনেই ক্রেতা সামাল দিতে তাদের হিমশিম খেতে হয়।
দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষার পর ভাগ্যগুণে পেঁয়াজ কিনতে পারেন ঝিকরগাছা থেকে আসা শাহিনুল হক। তিনি জানান, অনেক কষ্ট হয়েছে তবুও খুশি।
নিয়মানুযায়ী প্রতিজন ক্রেতা এক কেজি করে পেঁয়াজ পেয়েছেন। এরপরেও খুশি সদরের নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের তুষার হোসেন, উপশহরের আশরাফ মোল্লা, শংকরপুরের মিজানুর রহমান সহ আরো অনেকে।
ডিলার মাহফুজুর রহমান জানান, সোম, মঙ্গল ও বুধবার তিন হাজার কেজি বিক্রি করবেন। প্রথমদিন সোমবার আনার সাথে সাথে দুই ঘণ্টার মধ্যেই শেষ হয়ে গেছে। পরে সরবরাহ পেলে আরো পেঁয়াজ বিক্রি করবেন।
যশোর জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ জানান, টিসিবির ২৩ জন ডিলারের মধ্যে ১ জন পেঁয়াজ আঞ্চলিক গোডাউন থেকে তুলতে পেরেছেন। তিনি একাই তিনদিন বিক্রি করবেন। উপজেলা সদরগুলোতে বিক্রির বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।
নড়াইল : নড়াইলে খোলা বাজারে ৪৫টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রির কার্যক্রম উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ক্রিকেট ওয়ানডে দলের অধিনায়ক ও নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মোর্তজা। সোমবার দুপুর ১টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রির কার্যক্রম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা।
এ সময় পুলিশ সুপার মো: জসিম উদ্দিন,অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো: ইয়ারুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস,এনডিসি মো: জাহিদ হাসান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মাশরাফি বিন মোর্তজা লাইনে দাঁড়ানো বিভিন্ন ক্রেতার হাতে ৪৫টাকা কেজি দরের পেঁয়াজ তুলে দেন।
ঝিনাইদহ : সোমবার শহরের পায়রাচত্বরে খোলাবাজারে বিক্রি শুরু করেছে মেসার্স জয় এন্টারপ্রাইজ। পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হতেই কেনার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ে ক্রেতারা। পড়ে যায় দীর্ঘ লাইন। প্রতিজন এক কেজি করে মিশরীয় পেঁয়াজ নিয়ে আনন্দে ঘরে ফিরেছেন। দুপুর গড়িয়ে যেতেই ভিড় বাড়ে আরও কয়েক গুণ। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ভীটশ্বর গ্রাম থেকে আসা ফরহাদুজ্জামান বলেন, সকালে শহরে একটি কাজে এসেছিলাম। ৪৫ টাকায় ১ কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে শুনে লাইনে দাড়িয়ে পেঁয়াজ কিনলাম। শহরের চাকলাপাড়া এলাকার শাহ আলম বলেন, ৪৫ টাকা এক কেজি মিশরীয় পেঁয়াজ দেওয়া হচ্ছে। ছোট হোক বা বড় হোক পেঁয়াজ তো। এদিকে ক্রেতাদের সামাল দিতে সেখানে উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ।
মাগুরা : মাগুরায় সোমবার সকাল ১১ টা দুপুর ১ টা পর্যন্ত পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এ পেঁয়াজ বিক্রির উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক আশরাফুল আলম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পঙ্কজ কুন্ডু, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আফাজ উদ্দিনসহ অন্যান্যরা। এ সময় শহরের বিভিন্ন এলাকার অগণিত মানুষ পেঁয়াজ কিনতে ভীড় করে।
জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর রাজীব চৌধুরী জানান, টিসিবি’র খুলনা আঞ্চলিক কার্যালয়ের বরাদ্দকৃত তিন মেট্রিক টন পেঁয়াজ সোমবার থেকে বুধবার পর্যন্ত এ ৩ দিন মাগুরায় বিক্রি করা হবে। পেঁয়াজ কিনতে আসা মাগুরা সদর উপজেলার আঠারখাদা গ্রামের রিজিয়া খাতুন জানান, বাজারে পেঁয়াজের দাম বেশি। সরকারিভাবে ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনতে পারায় আমি অনেক খুশি।
বাগেরহাট : বাগেরহাটে টিসিবি খোলা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে। সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে বিক্রি করে টিসিবি ডিলার । পেঁয়াজ বিক্রির খবর পেয়ে পাশের আদালতপাড়ায় বিভিন্ন কাজে আসা শতশত নারী, পুরুষ পেঁয়াজ কিনতে লাইনে দাঁড়িয়ে পড়েন। দাম কম হওয়ায় আদালতের আইনজীবীরাও লাইনে দাঁড়াতে ভুল করেননি। তারাও পেঁয়াজ কিনেছেন।
টিসিবি’র (ট্রেড কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ) খুলনা বিভাগীয় কার্যালয়ের উর্ধ্বতন কার্য নির্বাহী মো. রবিউল মোর্শেদ বলেন, স্থানীয় বাজারে চলমান পেঁয়াজের দাম ও সংকট দূর করতে বাগেরহাটে খোলা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এজন্য বাগেরহাট জেলায় তুরস্ক থেকে আমদানি করা ৩ মেট্রিকটন পেঁয়াজ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। টিসিবির যেহেতু জেলা শহরে কোনো কার্যালয় নেই তাই স্থানীয় প্রশাসনই ঠিক করবে এই পেঁয়াজ কোথায় কতটুকু বিক্রি হবে।
বাগেরহাটে প্রতিদিন এক মেট্রিকটন পেঁয়াজ খোলা বাজারে বিক্রি হবে।