ভুটানের কাছে হেরে গেল বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক :

ম্যাচের আগে প্রস্তুত ও আত্মবিশ্বাসে ভরপুর এক দলের চিত্র ফুটিয়ে তুলেছিলেন কোচ জেমি ডে। মাঠের লড়াইয়ে দেখা মিলল উল্টোটা। সাদামাটা পারফরম্যান্সে ভুটানের কাছে হেরে দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে ছেলেদের ফুটবলে যাত্রা শুরু করল বাংলাদেশ।

কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে সোমবার ভুটানের কাছে ১-০ গোলে হারে জেমি ডের দল। রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতির এই প্রতিযোগিতায় মঙ্গলবার মালদ্বীপের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

গোলশূন্য প্রথমার্ধে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার ভালো সুযোগ নষ্ট হয় ৩৮তম মিনিটে। মোহাম্মদ ইব্রাহিমের ক্রসে সাদউদ্দিন ঠিকঠাক হেড নিতে পারেননি।

৬৫তম মিনিটে গোল হজম করে বাংলাদেশ। ডিফেন্ডারের ভুলে বল পেয়ে চেনচো গাইয়েলতসেন বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠেন। গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো পোস্ট ছেড়ে বেরিয়ে এসেও আটকাতে পারেননি। ভুটানের ফরোয়ার্ড নিখুঁত প্লেসিং শটে জাল খুঁজে নেন।

১৯৯৯ সালে প্রথম এই ইভেন্টে সেরা হওয়া বাংলাদেশ ২০১০ সালে দ্বিতীয় ও সবশেষ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। গতবার পেয়েছিল ব্রোঞ্জ। এবার সোনার পদক ফিরে পাওয়ার মিশনের শুরুতেই ধাক্কা খেল দল।

ঢাকায় গত নভেম্বরে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের আগে ভুটানের বিপক্ষে দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলেছিল বাংলাদেশ। দুই ম্যাচে ৪-১ ও ২-০ ব্যবধানে জিতেছিল ডের দল। তবে অনূর্ধ্ব-২৩ দল নিয়ে হওয়া এসএ গেমসে ভুটানের কাছে ধরাশায়ী জীবন-জামালরা।

ম্যাচ শেষে সাদউদ্দিনের সুযোগ নষ্ট করা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেন বাংলাদেশ কোচ। প্রশংসা করেন ভুটানের খেলারও।

“ভুটান জয়ের যোগ্য। তারা সম্ভবত আমাদের সমান সুযোগ তৈরি করেছে এবং বলের মুভমেন্টে আমাদের চেয়ে ভালো ছিল। আমরা খুবই সাদামাটা এবং মন্থর ছিলাম। সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রেও আমরা ভালো ছিলাম না।”

“প্রথমার্ধে সাদের গোল করা উচিত ছিল। জানি, আমরা আরও ভালো খেলতে পারি। পরের তিন ম্যাচে আমাদের খেলার মান বাড়ানো দরকার। যদি আমরা এভাবে খেলি, তাহলে ফাইনালে খেলার কোনো সুযোগ নেই।”