নড়াইলের আসলাম হত্যাকাণ্ডে প্রতিপক্ষের বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট

নিজস্ব প্রতিবেদক, নড়াইল : নড়াইলের কালিয়া উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নের চালিতাতলা গ্রামে দুইপক্ষের সংঘর্ষে আসলাম গাজী (৪৪) নিহতের ঘটনায় প্রতিপক্ষের বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, আসলাম গাজী হত্যাকাণ্ডের জের ধরে প্রতিপক্ষের বাদশা গাজী ও ইদ্রিস গাজীর নেতৃত্বে তাদের লোকজন বুধবার রাতে প্রতিপক্ষ বাবুল শেখের দু’টি পাকাঘর ভাঙচুর করে। পাশাপাশি সাতটি গরু ও অনেক হাঁস-মুরগি লুটে নেয়। প্রতিপক্ষের ভয়ে বাড়িঘর ছেড়ে পরিবারের ১৫ সদস্য অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। এছাড়া ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার আনিসুর রহমানের মুদি দোকান লুটপাট করে তারা। দোকানে প্রায় ৬০ হাজার টাকার মালামাল ছিল।

শুক্রবার সরেজমিনে দেখা যায়, বাবুল শেখের পাকাঘরের ইট, জানালা, দরজা, আসবাবপত্রসহ অন্যান্য মালামাল ভেঙ্গে চুরমার করা হয়েছে। ঘরে বসবাসের অবস্থা নেই। সুনশান নিরবতা বিরাজ করছে। প্রতিবেশীরা জানান, বুধবার রাতে ব্যাপক ভাঙচুরের শব্দ শুনে তারা আতঙ্কে উঠেন। ভয়ে এগিয়ে আসার সাহস পায় তারা। অন্যদিকে আনিসুরের বোন কাজল বৃহস্পতিবার দুপুরে ভাঙচুরের বিষয়টি কালিয়া থানার ওসিকে জানালে তিনি কাজলের সঙ্গে চরম দুর্ব্যবহার করেন বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। এছাড়া তাকে থানা থেকে বের করে দেয়া হয়েছে বলে তিনি দাবি করেছেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত বাদশা ও ইদ্রিস গাজী দাবি করে বলেন, আমরা কোনো বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করেনি। নিজেরা ভাঙচুর করে আমাদের ওপর দোষ চাপাচ্ছে। কালিয়া থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বাড়িঘর ভাঙচুরের কথা স্বীকার করলেও লুটপাটের কথা অস্বীকার করেন। এছাড়া আনিসের বোন কাজলের সঙ্গে কোনো খারাপ আচরণ করা হয়নি বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, ১ জানুয়ারি সকালে খালে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে নড়াইলের কালিয়া উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নের চালিতাতলা গ্রামে দুইপক্ষের সংঘর্ষে আসলাম গাজী নিহত এবং উভয়পক্ষের অন্তত ১৪ জন আহত হন। এ ঘটনায় নিহত আসলামের ভাই ইসমাঈল গাজী ৪৩ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা করেন। কালিয়ার চালিতাতলা গ্রামের কাদের মোল্যা ও ইদ্রিস গাজী সমর্থকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আধিপাত্যের লড়াই চলে আসছে। নিহত আসলাম ইদ্রিস গাজীর ছেলে।