যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক:
প্রেম প্রতারণা ও ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে জখমের অভিযোগে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে হাসপাতালে দায়িত্বরত শিক্ষানবীশ (ইন্টার্ন) চিকিৎসক তন্ময় কুমারের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন হয়েছে। ঢাকা ধানমন্ডি সেন্ট্রাল ল’কলেজের এক ছাত্রীর লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায়ের নির্দেশে ৩ সদস্যের এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। মেডিকেল কলেজের সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. অজয় কুমার সরকারকে কমিটির সভাপতি করা হয়েছে। অন্য দুইজন হলেন সদস্য সচিব সহকারী অধ্যাপক ডা. ইমদাদুল হক রাজু ও সদস্য হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ। আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন জমার দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
হাসপাতালের প্রশাসনিক সূত্রে জানা গেছে, গত ২৭ জানুয়ারি ওই ছাত্রী শিক্ষানবীশ চিকিৎসক তন্ময় কুমারের বিরুদ্ধে হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়কের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগে ওই ছাত্রী উল্লেখ করেছেন তার বাড়ি মাদারীপুর জেলায়। ডা. তন্ময় সেখানে বেড়াতে গেলে তার সাথে পরিচয়। পরে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দীর্ঘদিন ধরে তাদের সম্পর্ক চলে আসছে। বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে তারা দুইজন এক সঙ্গে বিভিন্ন এলাকা ঘুরেছেন। ১৮ জানুয়ারি ডা. তন্ময় যশোর থেকে ঢাকায় তার সাথে দেখা করতে যায়। ঘোরাঘুরির একপর্যায়ে অজ্ঞাত এক স্থানে নিয়ে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। কিন্তু বাধা দেয়ার কারণে ডা. তন্ময় ক্ষিপ্ত তাকে শরীরিক নির্যাতন করে। পরে তাকে ফেলে যশোরে চলে আসেন।
অভিযোগপত্রে আরো বলা হয়, ওই ছাত্রী পরে বিভিন্নভাবে যোগাযোগ করলে ডা. তন্ময় তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। এ বিষয়ে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায় জানান, ‘ল’ কলেজের ওই ছাত্রীর লিখিত অভিযোগটি আমলে নেয়া হয়েছে। ঘটনার সত্য মিথ্যা যাচাইয়ের জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।