শরণখোলায় সন্ত্রাসী হামলায় ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি আহত


শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি :
বাগেরহাটের শরণখোলায় করোনা ভাইরাস রোধে ভারত থেকে অবৈধভাবে লোক দেশে ফিরিয়ে আনতে নিষেধ করলে ভারতীয় দালালদের সন্ত্রাসী হামলায় ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি গুরুতর আহত হয়ে শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার উত্তর আমড়াগাছিয়া গ্রামে।
আহতের পরিবার সুত্রে জানা যায়, গত ২৮ মার্চ (শনিবার) সকালে খোন্তাকাটা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ও উত্তর আমড়াগাছিয়া গ্রামের মৃত আঃ মজিদ খানের ছেলে আঃ রাজ্জাক খান (৫০) করোনা ভাইরাস রোধে ভারত থেকে লোক দেশে ফিরিয়ে আনতে নিষেধ করলে কতিপয় ভারতীয় দালাল ও উপজেলার উত্তর আমড়াগাছিয়া গ্রামের আবজাল চৌকিদারের ছেলে মামুন হাওলাদার (৩০), ইলিয়াছ মামুন হাওলাদার (৩৯), লাল মিয়া মৃধার ছেলে লোকমান মৃধা (৪৮), মৃত নজর আলী তালুকদারের ছেলে সোহবাফ তালুকদার (৫৫), মামুন হাওলাদারের স্ত্রী হাফিজা বেগম (২৫) ও তাদের সহযোগি দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামের লোকমান মৃধার ছেলে সোহাগ মৃধা (২৭), এনায়েত সেপাইর ছেলে ফারুক সেপাই (৫০), মোস্তফা শরীফের পুত্র রুবেল শরীফ, লোকমান মৃধার পুত্র মহারাজ মৃধা (২২), দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামে মোস্তফা সরদারের ছেলে সোলায়মান সরদার (৩৫), হাসেম আলী সরদারের ছেলে মোস্তফা সরদার (৫৫), হোগলপাতি গ্রামের সরোয়ার শেখের ছেলে জসিম শেখ (২০), মমিন শরীফের ছেলে মোস্তফা শরীফ (৫৮) লোহার রড, লাঠি, মটর সাইকেলের হাইড্রোলিক পাইপ দিয়ে পিটিয়ে তার বাম হাত ও ডান পা ভাঙ্গিয়া গুড়িয়ে দেয়। এসময় তার ডাকচিৎকারে স্থানীয়রা আগাইয়া আসিলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায় এবং রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে শরণখোলা স্বাস্থ্য স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এ ঘটনায় আহত যুবলীগ নেতার ভাই শাহবাজ খান ১২জনকে আসামী করে শরণখোলা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ ব্যাপারে মামলার বাদী শাহবাজ খান বলেন, মামুন, ইলিয়াছ, লোকমান মৃধা ভারতে গোপনে লোকপাচার করে এবং বর্তমানে দেশে ফিরিয়ে আনছে। করোনা ভাইরাসের কারণে ভারতে থেকে লোক ফিরিয়ে আনতে নিষেধ করলে প্রতিপক্ষরা ক্ষিপ্ত হয়ে আমার ভাইয়ের উপর অমানুষিক হামলা করে তার হাত-পা ভেঙ্গে দেয়। এছাড়া স্থানীয় সমাজ সেবক ও আওয়ামীলীগ নেতা মনির তালুকদার বলেন, হামলাকারীরা ভারতে সার্টার ভাঙ্গা পার্টির সদস্য ও ভারতে লোক পাচারকারী। রাজ্জাক খান বর্তমানে করোনা ভাইরাসের প্রভাব উপেক্ষা করে দেশে লোক ফিরিয়ে আনতে নিষেধ করলে প্রতিপক্ষরা এ হামলার ঘটনা ঘটায়। এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষ মামুন হাওলাদার জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতন না হয়ে আঃ রাজ্জাক খান শালিস বৈঠক করায় স্থানীয়দের সাথে সামান্য মারপিটের ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে শরণখোলা থানা অফিসার ইনচার্জ এস.কে আব্দুল্লাহ আল-সাঈদ বলেন, আহতের ভাই শরণখোলা থানায় অভিযোগ করায় মামলা রেকর্ড করা হয়েছে এবং আমাসীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।