ছাত্রীর মাকে ধর্ষণের পর ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে পাইকগাছায় স্কুল শিক্ষক গ্রেফতার

পাইকগাছা প্রতিনিধি: পাইকগাছায় স্কুল ছাত্রীর মাকে ধর্ষণ করে আপত্তিকর  ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেবার অভিযোগে স্কুল শিক্ষক তরিকুল ইসলাম টিটুকে পুলিশ আটক করেছেন। সে পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের সরল গ্রামের মৃত আবু দাউদ আহমেদ এর ছেলে। তরিকুল বর্তমানে চাঁদখালী ইউপির গজালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ভিকটিম জানান, ২০১৪ সাল থেকে ২০১৯ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত শিক্ষক তরিকুল ইসলাম রেজ্জাকপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত থাকাবস্থায় ওই স্কুলের আমার ২য় শ্রেণি পড়ুয়া মেয়েকে পড়াতেন তিনি। সেই সুত্রে তার সাথে পরিচয় ঘটে। এক সময় এ শিক্ষক আমার মেয়ের পরীক্ষার খাতায় বেশি নাম্বার দেবার কথা বলে শারিরিক সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দিয়ে নানা প্রলোভন দেখায়। এ দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে তরিকুল ইসলাম আমাকে বিভিন্ন সময়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে আপত্তিকর এ ছবি ও ভিডিও মোবাইলে ধারণ করে। ইতোমধ্যে সে বদলী হয়ে গজালিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করে আবারোও কু-প্রস্তাব দিতে থাকে। আমি রাজি না হওয়ায় সে পূর্বের অশ্লীল ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেটে দেবার হুমকি দিলে গত ১০ ফেব্র“য়ারি রাতে অশ্লীল ছবি ও ভিডিও ডিলেট করার শর্ত দিয়ে আমাকে মেলামেশা করতে বাধ্য করে। পরবর্তীতে এ শিক্ষক অশ্লীল ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দিয়ে প্রতারণা করেছে। এ ঘটায় ভিকটিম বাদী হয়ে গতকাল শিক্ষক তরিকুলের বিরুদ্ধে পর্ণোগ্রাফী ও নারী-শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন। স্কুল শিক্ষকের গ্রেফতারের কথা উল্লেখ করে ওসি মো. এজাজ শফী জানান ভিকটিমের অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় নিয়মিত মামলা রুজু হয়েছে। ভিকটিমকে উদ্ধার পুর্বক আলামত জব্দ করে ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ঠ দপ্তরে পাঠানো হয়েছে।