যশোর সদরে ১০ টাকা মূল্যের চাল বিক্রি শুরু

মিরাজুল কবীর টিটো : যশোর সদর উপজেলার ১০টি স্থানে রোববার থেকে ১০ টাকা কেজি দামের চাল বিক্রি শুরু হয়েছে। করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের স্বল্প মূল্যে খাদ্য সহায়তা দিতে এ কার্যক্রম চালু  হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রতিজন ডিলার প্রতিদিন ১ হাজার কেজি চাল বিক্রি করছেন। একজন ব্যক্তি সর্বোচ্চ ৫ কেজি করে চাল কিনতে পরছেন বলে জানায় জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর।  প্রথম দিনে ওএমএস চাল বিক্রির দোকানে ছিল মানুষের উপচে পড়া ভিড়।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অধিদফতর জানায় ঘোপ সেন্ট্রাল রোড, কাজী পাড়া, চার খাম্বার মোড়, বারান্দিপাড়া, রেলগেট, জিলা স্কুলের সামনে, বেজপাড়া , বিসিক, ধর্মতলা, বড় বাজার এলাকায় ১০ জন ডিলার চাল বিক্রি করছেন। একজন ডিলার প্রতিদিন ২শ মানুষের মাঝে ৫ কেজি করে চাল বিক্রি করতে পারবেন। চাল কিনতে জাতীয় পরিচয়পত্র সাথে থাকতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র  ছাড়া চাল বিক্রি করা হচ্ছে না।  তবে পৌর এলাকার ডিলারদের কাছ থেকে চাল কিনতে ক্রেতাদের পৌরসভার ভোটার হতে হবে।

ঘোপ সেন্ট্রাল রোডে ডিলার রবিউল ইসলামের কাছে চাল কিনতে আসে ঘোপ সেন্ট্রাল রোডের বাসিন্দা আব্দুল খালেক জানান তিনি পেশায় শ্রমি, কম দামে  চাল  পেয়ে কিনতে এসেছেন। সখিনা খাতুন নামে আরেক মহিলা জানান ১০ টাকা দামের চাল গরিব মনুষদের বাঁচিয়ে দেবে। একই কথা জানান রুবিনা খাতুন, মিঠু হোসেনসহ চাল কিনতে আসা আরো অনেকে। ডিলার রবিউল ইসলাম জানান সঠিক ওজনে চাল বিক্রি করা হচ্ছে। কোনো অনিয়ম হচ্ছে না। জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা লিয়াকত আলী জানান সুষ্ঠু পরিবেশে চাল বিক্রি হচ্ছে। চাল বিক্রির সঠিক ভাবে হচ্ছে কিনা সেটা তদারকি করছে কর্মকর্তারা। কোনো ডিলারের বিরুদ্ধে চাল বিক্রির ক্ষেত্রে অনিয়মের অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে ওএমএসএর চাল সঠিক ভাবে বিক্রির বিষয় তদারকি করার জন্য যশোর পৌরসভা থেকে তাদের কর্মচারীদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে জানান সচিব আজমল হোসেন।