করানো রোগী শনাক্তের অনুমতি পেলো যবিপ্রবির জিনোম সেন্টার

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস রোগী শনাক্ত করতে পারবে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) অত্যাধুনিক গবেষণাগার জিনোম সেন্টার। ইতিমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন দিয়েছে। শিগগিরই এই পরীক্ষা শুরু করবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

যবিপ্রবি কর্তৃপক্ষ বলছেন, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টারে করোনা ভাইরাস বহনকারী রোগী শনাক্তে যথেষ্ট জনবল রয়েছে। খুলনা বিভাগে করোনা পরীক্ষার যে  সেন্টার করার কথা বলা হচ্ছে, সেটিও যবিপ্রবিতে স্থাপন করা সম্ভব। এ বিষয়ে সরেজমিনে দেখতে গত ২৫ মার্চ একটি উচ্চ পর্যায়ের দল যবিপ্রবির জিনোম সেন্টার পরিদর্শন করেন। বিশ^বিদ্যালয় থেকে  তাদের জানানো হয়, দেশে আমদানিকৃত কিট দিয়েই ২৪ ঘণ্টায় অন্তত ৩০ জনের পরীক্ষা সম্ভব। যবিপ্রবির উপাচার্য যেহেতু নিজেই একজন গবেষক, সুতরাং সরকার সিদ্ধান্ত নিলে তিনিসহ এ সেন্টারের সঙ্গে জড়িত সকল শিক্ষক ও গবেষক কাজ করতে প্রস্তুত রয়েছেন। সরকারের তরফ থেকে কোনো বাড়তি জনবল সরবরাহের প্রয়োজন নেই।

যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাছিমা সুলতানা শনিবার আমাকে ফোন করে যাবতীয় প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। তবে কি পরিমান পরীক্ষা করব সেসব বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়নি। আইডিআরবির পরিচালক মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরাও কথা বলেছেন। আমরা প্রস্তুত রয়েছি। করোনা পরীক্ষা করার জন্য যত রকম অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি প্রয়োজন সবই আমাদের আছে। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় দেশের এই সংকটাপন্ন সময়ে সহযোগিতা করতে সব সময় প্রস্তুত। বিষয়টি নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাছিমা সুলতানা জানান, শিগগিরই যবিপ্রবিতে করোনা পরীক্ষার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে যাচাই বাছাই শেষ হয়েছে।

যশোরের সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহিন জানান, যবিপ্রবিতে করোনা পরীক্ষার সব ধরণের সুবিধা রয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের কাছে মতামত চেয়েছিল। আমরা দিয়েছিলাম যে এখানে সফলভাবে পরীক্ষা করা যাবে।