কিম জং উনের অসুস্থতার তথ্য নিয়ে বিভ্রান্তি

স্পন্দন আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, হৃদযন্ত্রের অস্ত্রোপচারের পর উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন গুরুতর অসুস্থ হওয়ার যে তথ্যটি ছড়িয়ে গেছে তা সঠিক নয়।

মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ তথ্য জানায়।

কিম জং উন ‘মারাত্মক অসুস্থ’ বা ‘অস্ত্রোপচারের পর সুস্থ হয়ে উঠছেন’ কিনা তা যাচাই করা প্রায় অসম্ভব।

কিন্তু দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের দপ্তর থেকে জানানো হয়, উত্তর থেকে এমন কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি যাতে মনে হয় ৩৬ বছর বয়সী নেতা কিম ‘মারাত্মক অসুস্থ’।

আরও পড়ুন>> কিম জং উনের শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক!

এবারই প্রথম কিমের স্বাস্থ্য নিয়ে গুজব ছড়ায়নি। এর আগেও এমন গুজব ছড়ানোর পর তা ভিত্তিহীন প্রমাণিত হয়েছে।

মঙ্গলবার সিএনএন এক প্রতিবেদনে দাবি করে, মার্কিন গোয়েন্দা বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, গত ১৫ এপ্রিল দাদার জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না কিম। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ অনুষ্ঠানে তিনি উপস্থিত না থাকায় তার শারীরিক অবস্থা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। এর চারদিন আগে সরকারি এক বৈঠকে তাকে শেষবার দেখা গিয়েছিল।

আরেক মার্কিন কর্মকর্তা জানান, কিমের অসুস্থতার খবর বিশ্বাস্য হলেও তা কতটা গুরুতর সেটি বোঝা কঠিন।

এদিকে দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক অনলাইন সংবাদমাধ্যম ‘ডেইলি এনকে’ জানায়, ১২ এপ্রিল কিম জং উনের হৃদযন্ত্রে অস্ত্রোপচার হয়েছে। অতিরিক্ত ধূমপান, মুটিয়ে যাওয়া এবং অধিক পরিশ্রমের কারণে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তার হৃদযন্ত্রে এ অস্ত্রোপচার করা হয়। তিনি এখন হিয়াংসান কাউন্টিতে তার ভিলায় বিশ্রাম নিচ্ছেন।

কিমের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায়, তার চিকিৎসায় নিয়োজিত মেডিক্যাল টিমের অধিকাংশ সদস্য ১৯ এপ্রিল পিয়ংইয়ং ফিরে যান। তবে তার সুস্থতা পর্যবেক্ষণের জন্য কয়েকজন সেখানেই রয়ে গেছেন।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদ এবং গোয়েন্দা বিভাগের পরিচালকের দপ্তর এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

উত্তর কোরিয়ায় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকায় দেশটি থেকে কোনো তথ্য বের করা অত্যন্ত কঠিন। এ পরিস্থিতিতে কিমের শারীরিক অবস্থা নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে।