গাঙ্গুলিয়া গ্রামে হঠাৎ ঘুর্ণিঝড়ে কলাক্ষেত লণ্ডভণ্ড, লাখ লাখ টাকা ক্ষতি


নিরঞ্জন চক্রবর্ত্তী, নেংগুড়াহাট (যশোর):
মণিরামপুরের গাঙ্গুলিয়া গ্রামে গত মঙ্গলবার রাতে আকস্মিক ঘূর্ণিঝড়ে প্রায় ২০ বিঘা জমির কলাগাছ ভেঙে গেছে। ফলে বর্গাচাষি কৃষকদের ২০ লাখ টাকার অধিক ক্ষতি হয়েছে।
ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার রোহিতা ইউনিয়নের গাঙ্গুলিয়া গ্রামের কয়েকটি হতদরিদ্র পরিবার ধনি ব্যক্তিদের কাছ থেকে প্রতি বিঘা জমি বার্ষিক ১৫ হাজার টাকা জমি লিজ নিয়ে কলা চাষ করেছেন। এর মধ্যে কৃষক শফিকুল ইসলাম ২ বিঘা জমি লিজ নিয়ে কলা চাষ করেছেন। ঘুর্ণিঝড়ে ৪২৩ টি কলাগাছ উপড়ে গেছে। যার ক্ষতির পরিমান প্রায় ২ লক্ষাধিক টাকা। কৃষক ইমদাদুলের ৪ বিঘা জমির প্রায় সাড়ে পাঁচ শত কলাগাছ ভেঙ্গে গেছে। ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৩ লাখ টাকা। কৃষক আইনুলের ২ বিঘা ৫ কাটা জমির ৪১০ টি কলাগাছ ভেঙ্গে গেছে। ক্ষতির পরিমাণ প্রায় আড়াই লাখ টাকা। আসাদুলের ২ বিঘা জমির ৩৫২ টি কলাগাছ ভেঙ্গে গেছে। যার ক্ষতির পরিমান প্রায় ২ লাখ টাকা, ওমর ফারুখের ১বিঘা ১৫ কাটা জমির প্রায় ২শটি কলাগাছ ভেঙ্গে গেছে। ক্ষতির পরিমান প্রায় দেড় লাখ টাকা। আলী মুনছুরের ৩ বিঘা জমির ৪৭৫টি গাছ ভেঙ্গে গেছে। ক্ষতির পরিমান প্রায় ৩ লাখ টাকা। শাহাদাতের ২ বিঘা জমির সাড়ে তিনশটি গাছ ভেঙ্গে পড়েছে। ক্ষতি হয়েছে প্রায় আড়াই লাখ টাকা। খায়রুলের ৩ বিঘা জমির প্রায় ৪শটি ও কাউছারের আড়াই বিঘা জমির ৩৪০টি কলাগাছ ঘুর্ণিঝড়ে ভেঙ্গে ও উপড়ে গেছে। তাদের দুজনের ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৫ লাখ টাকা। গ্রামের ৯ জন কলাচাষির ২০ লাখ টাকার অধিক ক্ষতি সাধন হয়েছে। এ বিষয়ে কলাচাষি শফিকুল ইসলাম ও আমিনুল ইসলাম বলেন, অন্যের জমি লিজ নিয়ে প্রচুর টাকা ব্যয় করে আমরা কলাচাষ করেছি। এখন প্রতিটি কলাগাছে কলার খাদি পড়েছে। ঘুর্ণিঝড়ে খাদি ভরা কলাগাছ ভেঙ্গে পড়ায় আমরা দিশেহারা হয়ে পড়েছি।