যশোরে দুই চিকিৎসক ও সাংবাদিকসহ আরও ২০জনের করোনা জয়


বিল্লাল হোসেন:
প্রাণঘাতি কোভিড-১৯ নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর সোমবার যশোর জেলায় দুই চিকিৎসক, দুই সেবিকা ও এক সাংবাদিকসহ আরো ২০ জন সুস্থ হয়েছেন। এরমধ্যে যশোর সদর উপজেলার ৫ জন, চৌগাছায় ৩ জন, বাঘারপাড়ায় ১ জন , মণিরামপুরে ১ জন ও কেশবপুরে ১০ জন রয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করে যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানান, সোমবার পর্যন্ত যশোরে মোট ২৪ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়েছেন।
সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা মেডিকেল অফিসার ডা. রেহেনেওয়াজ জানান, যশোর সদরে সুস্থ হওয়া ৫ জন যশোর বক্ষব্যাধি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তারা হলেন সাংবাদিক সিদ্দিকুর রহমান (৬২) , জাহাঙ্গীর হোসেন (২৬), শারমিন রহমান (৫০), নুর আলম (৫৬) ও শামসুর রহমান (৬০)। এছাড়া চৌগাছা উপজেলার চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সেবিকা হাফিজা পারভীন (৪৭), সেবিকা শিমুল আক্তার (২৭) ও পৌরসভার মডেল পাড়ার রোকেয়া বেগম (৪৭)। বাঘারপাড়া উপজেলার আব্দুল মান্নান (২৫), মনিরামপুর উপজেলার হাজরাকাটি গ্রামের রবিউল ইসলাম (২৮)। কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. প্রদীপ্ত চৌধুরী (২৭), ডা. জাহিদুর রহমান (২৮) , উপসহকারি কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার সঞ্জিত কুমার বিশ্বাস (২৯), স্বাস্থ্যকর্মী আশিকুর রহমান (২৮), আমিনুল ইসলাম (২৭), ওয়াহেদুজ্জামান (৩০), নাজমুল করিম (২৯), সাধারণ রোগী মুনছুর আলী (৩৫), ফিরোজ আহমেদ (৩৫) ও বকুল বেগম (২৭)। কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলমগীর হোসেন জানান, গত ২৫ ,২৭ ও ২৮ এপ্রিলের মধ্যে সুস্থ হওয়া মোট ১০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিলো। এরপর ২য় ও ৩য় পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে। চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লুৎফুন্নাহার লাকি জানান, হাসপাতালের সেবিকা হাফিজা ও শিমুল আক্তারের করোনা শনাক্ত হয়েছিলো গত ২৬ এপ্রিল। আর রোগী রোকেয়ার শনাক্ত হয় ২৫ এপ্রিল। করোনামুক্ত হওয়ার পর হাসপাতালের পক্ষ থেকে তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে।
মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা শুভ্রা রানী দেবনাথ জানান, রবিউল ইসলাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন স্বাস্থ্যকর্মী । গত ১২ এপ্রিল যশোর জেলায় সর্বপ্রথম তিনি করোনা রোগী হিসেবে শনাক্ত হন। ২য় রিপোর্টের ফলাফলও তার করোনা পজেটিভ হয়। পরে ৩য় ও ৪র্থ নমুনা পরীক্ষায় রবিউলের ফলাফল করোনা নেগেটিভ হয়। যশোর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরবিার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মীর আবু মাউদ জানান, যশোর সদরের ৫ জনের মধ্যে ২৭ এপ্রিল সিদ্দিকুর রহমান , শারমিন রহমান ও নুরআলম করোনা পকেটিভ শনাক্ত হন। এছাড়া ২৩ এপ্রিল শামসুর রহমান ও ২৪ এপ্রিল জাহাঙ্গীর হোসেনের করোনা ফলাফল পজেটিভ আসে। যশোরের সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন জানান, সোমবার ২০ জন করোনামুক্ত হওয়ার পর তাদের মেডিকেল ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। এসময় স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ তেকে তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। যশোরের করোনা পরিস্থিতি ক্রমেই উন্নতি হচ্ছে। জেলায় মোট করোনামুক্ত হলেন ২৪ জন। সুস্থ হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন আরো ৪৯ জন।