কবর খোঁচার কোদালও দেয়নি গ্রামবাসী : কালীগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে শ্রমিকের মৃত্যু

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : কালীগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ঢাকা ফেরত শুকুর আলী (৪৫) । বৃহস্পতিবার ভোর রাত সাড়ে ৩ টার দিকে ঢাকা থেকে কালীগঞ্জ কাশিপুর গ্রামে তার শশুর বাড়িতে আসার পর সকালে মারা যান। উপজেলার রায়গ্রাম ঘোপপাড়ার মসলেম আলীর ছেলে শুকুর আলী দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা সিটি মিলের সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি করতেন। বুধবার শরীরে জ¦র নিয়ে  বাড়িতে ফিরে ছিলেন। এদিকে সকালেই তার নিয়ে লাশ দাফন করতে কালীগঞ্জে ঈমামদের ৭ সদস্যের একটি সেচ্ছাসেবক টিম ওই গ্রামে যায়। সেখানে লাশ দেখেই গ্রামবাসীরা দূরে চলে যায়। কবর খোচার কোদালও দিতে রাজি হয়নি কেউ। পরবর্তিতে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলী হোসেন অপুকে বিষয়টি জানানো হলে তিনি কোদালের ব্যবস্থা করেন।  ছোট সেই কোদাল দিয়েই অনেক কষ্টে ঈমামরা কবর খুঁচে লাশ দাফন করেন। এ দাফন কাজে ইউপি চেয়ারম্যান, কালীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাংবাদিক রুহুল আমিন সৌরভ ও ফিরোজ আহম্মেদও অংশনেন।

নিহত শুকুরের শ^শুর রহমান ড্রাইভারের পরিবার জানায়, বুধবার শরীরে জ্বর নিয়েই সে ঢাকা থেকে বাড়ির উদ্দেশ্যে বের হয়। কিন্তু কালীগঞ্জ পৌঁছানোর পর অনেক রাত হওয়াতে নিজের গ্রামে যেতে না পারায় ভোরে তার শ^শুর কাশিপুর গ্রামে রহমানের বাড়িতে ওঠেন। ঘুমের মধ্যেই সকালে সে মারা যায়।

করোনা উপসর্গে লাশের করনীয় বিষয়ে জানতে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শামিমা শারমিন লুবনার ০১৭৩৪১০০০৭০ নং মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোস রিসিভ করেননি। নিহতের বিষয়ে কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সূবর্ণা রানী সাহা জানান, নিহত ওই ব্যাক্তি ঢাকা থেকে এসেছে বলে শুনেছেন। তার করোনা আছে কিনা তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। ওই বাড়িতে লকডাউনের আওতায় আনা হয়েছে।