হাকিমপুর স্কুলের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরদ্ধে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছার হাকিমপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ করেছেন এক মুক্তিযোদ্ধাসহ স্থানীয়রা।

১৯ মে মঙ্গলবার বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমানসহ পাঁচজনের স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ চৌগাছা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলামের কাছে দেয়া হয়েছে।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, হাকিমপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৪ বারের স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রবিউল ইসলাম মৃধা। সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক আশরাফুল ইসলামের স্বার্থে দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাত ও স্বেচ্ছাচারিতার কারণে স্কুলের শিক্ষার মান নষ্ট হয়েছে।

অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, ২০১৯ সালে প্রধান শিক্ষক নিয়োগে ১১ লাখ টাকা এবং অফিস সহকারী নিয়োগ দিতে ৭ লাখ টাকা বাণিজ্য করা হয়েছে। অন্য প্রার্থীর টাকা পরিশোধ করার কথা বলে অফিস সহকারী নিয়োগে সভাপতির মেয়ে গুলফা পারভীন মুক্তির নামে ২৮ শতক জমি লিখে নেন। একই সাথে বিদ্যালয়ের নিরাপত্তা ও পরিছন্ন কর্মী নিয়োগের জন্য ১৮ লাখ টাকা নেয়ার অভিযোগ করেছেন।

সভাপতির দুর্নীতির কারণে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির চারজন সদস্য (নাজমুল হুসাইন, আব্দুল কাদের, সরোয়ার হোসেন খান ও আমিনুর রহমান) পদত্যাগ করেছেন। কিন্তু ম্যানেজিং কমিটি বিলুপ্ত হওয়ার ভয়ে সভাপতি তার নিজের লোক হিসেবে দুজন নতুন অভিভাবক সদস্য যুক্ত করেন নেন।

অভিযোগকারী মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান জানান, সভাপতি উপজেলার শীর্ষ আওয়ামী লীগের নেতাদের দোহাই দিয়ে নিজেদের দুর্নীতি ঢাকতে এবং অবস্থান ধরে রাখতে ইউনিয়নরে অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তিকে ম্যানেজ করে চলেন। আমরা যা অভিযোগ করেছি যথাযথ কর্তৃপক্ষ যদি তদন্ত করেন তাহলে অবশ্যই তার সত্যতা মিলবে।

প্রধান শিক্ষক আশরাফুল ইসলাম বলেন, অভিযোগগুলো মিথ্যা। আর চারজন অভিভাবক সদস্য পদত্যাগ করেননি। দুজন অভিভাবক সদস্য নাজমুল আলম ও আব্দুল কাদের পদত্যাগ করেছিলেন। পরবর্তীতে আমরা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও যশোর শিক্ষা বোর্ডকে অবহিত করেছি এবং নিয়ম মেনে দুজনকে অভিভাবক সদস্য হিসেবে অর্ন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

হাকিমপুর স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রবিউল ইসলাম বলেন, আমার নামে আনিত সকল অভিযোগ মিথ্যা। নিজের মেয়ের নামে জমি লিখে নেয়ার ব্যপারে তিনি বলেন, আমার মেয়ে বিদ্যালয়ের অফিস সহকারির দাদার কাছ থেকে ২৮ শতক জমি ক্রয় করেছে।

অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম বলেন বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।