করোনাজয়ী ৬ চিকিৎসক পুরোদমে রোগীর চিকিৎসাসেবা দিচ্ছেন

বিল্লাল হোসেন : যশোরে করোনা জয়ী ৬ চিকিৎসক রোগীদের চিকিৎসাসেবায় ফিরেছেন। বর্তমানে তারা সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে পুরোদমে রোগীর চিকিৎসাসেবা প্রদান করছেন। তাদের দেখে বোঝার উপায় নেই যে তারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। এখন তারা হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের করোনার বিষয়ে সাহস দিচ্ছেন। এদিকে, বৃহস্পতিবার যশোরে ৩ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল পেয়েছে সিভিল সার্জন অফিস। তাদের কারো শরীরে কোভিড-১৯ নভেল করোনাভাইরাসের জীবানু মেলেনি।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত যশোর জেলায় মোট ৯৫ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে যশোর সদর উপজেলায় ৩৬ জন, শার্শা উপজেলায় ৮ জন, ঝিকরগাছা উপজেলায় ৭ জন, চৌগাছা উপজেলায় ১৫ জন, কেশবপুর উপজেলায় ১৩ জন, মণিরামপুর উপজেলায় ৯ জন, বাঘারপাড়া উপজেলায় ৩ জন ও অভয়নগর উপজেলায় ৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ৫২ জন। এরমধ্যে আক্রান্ত ১৫ চিকিৎসকের মধ্যে ইতিমধ্যে ৮ জন চিকিৎসক সুস্থ হয়েছেন। ইতিমধ্যে করোনাকে জয় করে কর্মস্থলে ফিরেছেন ৬ জন। তারা হলেন শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. বিচিত্র মল্লিক, চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আসিফ রায়হান, ডা. উত্তম কুমার এবং কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. প্রদীপ্ত চৌধুরী ও ডা. জাহিদুর রহমান। চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা ডা. লুৎফুন্নাহার লাকি জানান, তার হাসপাতালে দায়িত্বরত দুই চিকিৎসকের মধ্যেগত ৭ মে ডা. আসিফ রায়হান ও গত ১৩ মে সুস্থ হয়েছিলেনডা. উত্তম কুমার। সুস্থ হওয়ার পর সরকারি নিয়মনীতি মানার পর অন্যদের মতো তারা কর্মস্থলে ফিরে পুরোদমে চিকিৎসাসেবায় নেমে পড়েছেন। যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানিয়েছেন, প্রাণঘাতী কোভিড-১৯ আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়েই তারা পুরোদমে দায়িত্বে নেমে পড়েন। তাদের মাঝে করোনার কোন রকম আতংক নেই। করোনার ভয়কে জয় করেই তারা উপজেলা পর্যায়ে রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করছেন। এদিকে, সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকতা মেডিকেল অফিসার ডা. রেহেনেওয়াজ জানিয়েছেন, এদিন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে যশোর জেলার ১৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য খুলনা মেডিকেল হাসপাতালের (খুমেক) ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।