ঈদের দিন যশোর শংকরপুরে দুইপক্ষের সংঘর্ষে আহত ৩

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদের দিন বিকেলে (সোমবার) যশোর শহরের শংকরপুর হাজারিগেটে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় কোতয়ালি থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে। ওই সংঘর্ষে তিনজন আহত হয়েছে।

আহতরা হলেন, হাজারিগেট এলাকার মৃত আইয়ুব আলীর ছেলে মফিজুর রহমান (২৬), শংকরপুর গোলপাতা মসজিদ এলাকার আলমগীর হোসেন ওরফে বেড়ে আলীর ছেলে তানভীর ইসলাম সুইট (১৯) এবং শেখ সোলায়মানের ছেলে শুভ (১৮)।

আহত মফিজুর রহমানের মা সালেহা বেগমের দায়ের করা মামলায় আহত তানভীর ইসলাম সুইট ও শুভ ছাড়াও অন্য আসামি হলো, নাজির শংকরপুর ছোটনের মোড়ের হাফিজুর রহমানের ছেলে আবু মুছা (২১), ঠিলে মুন্সি ওরফে হালিমের ছেলে টুনি শাওন (১৯), আমিনুর ইসলামের ছেলে ইনা (১৯), কাজলের ছেলে বুলেট সাগর (২১), শাহজাহান মিস্ত্রির ছেলে শান্ত (২০), আশরাফের ছেলে ঝন্টু (২৩), আব্দুল মান্নানের ছেলে রিপন (২০) এবং রশিদের ছেলে সোহেল (২৪)।

এজাহারে তিনি উল্লেখ করেছেন,  আসামিরা তার প্রতিবেশি। তার ছেলে মফিজুর ২৫ মে ঈদের দিন বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে হাজারি গেটের দক্ষিণ পাশের ভ্যান চালক কাশেম মিয়ার বাড়ির পাশে যায়। সে সময় আসামিরা তাকে একা পেয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে। চাকু দিয়ে ডান পায়ের উরুতে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসালে আসামিরা পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। সে সময় পিছু ধাওয়া করে সুইট ও শুভকে ধরে ফেলে এবং গণপিটুনি দেয়। এতে তারা আহত হয়। পরে মফিজুরকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহত সুইট ও শুভকেও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আহত তানভীর ইসলাম সুইটের পিতা গোলপাতা মসজিদ এলাকার আলমগীর হোসেন ওরফে বেড়ে আলী কোতয়ালি থানায় দায়েরকরা মামলায় দুইজনসহ অজ্ঞাত ৭/৮জনকে আসামি করেছেন। আসামিদ্বয় হলো শংকরপুর হাজারি গেট এলাকার আহত মফিজুর রহমান ও নাজির শংকরপুর চাতালের মোড়ের আজানুর (২২)।

তিনি এজাহারে উল্লেখ করেছেন, তার ছেলে তানভীর ইসলাম সুইট আল হেরা ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী। ঈদের দিন বিকেলের দিকে সুইটি শংকরপুর হাজারি গেটের পাশে ভ্যান চালক কাশেমের বাড়ির পাশে যায়। সে সময় আসামিরা পূর্ব শত্রুতার জেরে তাকে একে পেয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট এবং ছুরিকাঘাতে আহত করে। পরে তার চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসালে আসামি মফিজুরকে ধরে গণপিটুনি দেয়। এতে সেও আহত হয়। পরে আশপাশের লোকজন এগিয়ে গিয়ে সুইটকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

এই দুই মামলার আহত তিন আসামি মফিজুর, সুইট ও শুভকে আটক করেছে পুলিশ। তাদেরকে ঈদের পরদিন আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।