কেশবপুর আসনে উপনির্বাচনের সিদ্ধান্ত অফিস খোলার পর

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা পরিস্থিতিতে অন্যসব কিছুর মতো থমকে আছে যশোর ৬ আসনের (কেশবপুর) উপ-নির্বাচন। ২৯ মার্চ এই নির্বাচনের তারিখ নির্ধারিত থাকলেও তার এক সপ্তাহ আগে  করোনার কারণে ২২ মার্চ ওই নির্বাচন স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। ৩১ মে থেকে অফিস খোলার পর এ বিষয়ে নতুন সিদ্ধান্ত আসতে পারে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতায় রয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার, বিএনপি প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ এবং জাতীয় পার্টির প্রার্থী আহসান হাবিব। ২১ জানুয়ারি সংসদ সদস্য ও সাবেক জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেকের মৃত্যু হলে আসনটি শূন্য ঘোষণার পর বিজ্ঞপ্তি জারি করে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

তফসিল অনুযায়ী ২৭ ফেব্রুয়ারি ছিল মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ তারিখ, ১ মার্চ মনোনয়ন বাছাই, প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ছিল ৮ মার্চ এবং ২৯ মার্চ নির্বাচন। নির্বাচনি এলাকায় মোট ১ লাখ ৯০ হাজার ৬শ ৯০ ভোটারের মধ্যে রয়েছে ৯৫ হাজার ৫শ’ জন পুরুষ এবং ৯৫ হাজার ১শ’ ৯০ জন মহিলা ভোটার। ৭৯ টি ভোট কেন্দ্রে রয়েছে ৩শ ৭৪টি ভোটকক্ষ।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও উপনির্বাচনের রির্টানিং অফিসার হুমায়ুন কবীর বলেন, আমাদের সকল প্রস্তুতি চূড়ান্ত আছে। ৩১মে থেকে অফিস খোলার পর নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত নিতে পারে। এর আগে কিছুই বলা যাচ্ছে না।