মা-মেয়ের বন্ধুত্ব, ভালোবাসাবাসি এবং মায়ের পথে মেয়ের চলা

স্পন্দন বিনোদন ডেস্ক : কণ্ঠশিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যানসি’র বড় মেয়ে মার্জিয়া বুশরা রোদেলা। তাদের মধ্যকার মা-মেয়ের সম্পর্ক ছাড়িয়ে তারা ভালো বন্ধুও বটে। বোঝা’ই যাচ্ছে মা-মেয়ের ভালোবাসাবাসিটা কোন পর্যায়ের! শুধু তাই না, সংগীতকে ভালোবেসে মায়ের পথেই চলা শুরু করেছেন ন্যানসিকন্যা। এরই মধ্যে কণ্ঠশিল্পী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছেন রোদেলা।

সম্প্রতি  মুখোমুখি হন ন্যানসি ও রোদেলা। কথা হয় গান নিয়ে রোদেলার স্বপ্ন, ভবিষ্যত পরিকল্পনা, মেয়েকে নিয়ে ন্যানসির ভাবনা এবং তার বর্তমান ও আগামী ব্যস্ততা নিয়ে। পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হলো-

: দেশের অন্যতম সেরা গায়িকা হিসেবে আপনি প্রতিষ্ঠিত। গানের ভুবনে যাত্রা শুরু করেছেন আপনার মেয়ে রোদেলাও। তো, মা এবং একজন গায়িকা হিসেবে সংগীতাঙ্গনে মেয়েকে কোন অবস্থানে দেখতে চান কিংবা মেয়েকে নিয়ে আপনার প্রত্যাশা কী?

ন্যানসি: আমার বাস্তব অভিজ্ঞতা হলো- শুধুমাত্র গান করে আমাদের দেশে কোনো শিল্পী দীর্ঘ ক্যারিয়ার গড়তে পারেন না। এখানে অধিকাংশ শিল্পীরই নির্দিষ্ট একটা সময়ের পর নিজ অবস্থান থেকে ছিটকে পড়তে হয়। তাই আমি চাই না, আমার মেয়ে গানকে পেশা হিসেবে চূড়ান্ত করুক।

 

 

রোদেলা : আমি আসলে গানটা ভালোভাবে শিখতে চাই। পড়ালেখার পাশাপাশি সংগীত-চর্চাটা নিয়মিতই করছি। ভালো গান করতে চাই। অবশ্য ভব্যিষতে কিছু একটা করার পাশাপাশি’ই গানটা করবো। তবে আমি এখনো জানি না, আমার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কী। মানে, এখনো বলতে পারছি না- আমি কী হতে চাই বা কী হতে পারবো। তবে ইচ্ছে আছে বড় হয়ে সমাজসেবামূলক কাজ করার, অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর। সেজন্য সবার কাছে দোয়া-প্রার্থনা চাই। আর আম্মু তো পাশে আছেনই, যার সব রকমের সমর্থন আমি পাচ্ছি।

ন্যানসি : ভালোবাসা দিবসে তার একটি গান প্রকাশের কথা ভেবেছিলাম। কিন্তু সময়-সুযোগের অভাবে হলো না। তবে আশা রাখি, আসছে পহেলা বৈশাখে রোদেলার গান পাবেন শ্রোতারা। আর মেয়ের কণ্ঠে জাতীয় কবির ‘প্রজাপতি’ এবং বিশ্বকবির ‘আমরা সবাই রাজা’ শীর্ষক গান দুটির জন্য অনেকের প্রশংসা পেয়েছি। ব্যক্তিগতভাবে আমিও ভীষণ খুশি।