ঈদের পর দড়াটানা-চাঁচড়া ফোরলেনের  কাজ চলছে দ্রুতগতিতে

মিরাজুল কবীর টিটো : ঈদের পর দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে যশোর শহরের দড়াটানা থেকে চাঁচড়া মোড় পর্যন্ত দুই কিলোমিটার রাস্তা চার লেনে উন্নীতকরণের কাজ। গত ৩১ মে রোববার থেকে ফের একাজ শুরু করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। এখন করা হচ্ছে রাস্তা স্কেভেটর দিয়ে খুড়ে বালি ও খোয়া ভরাট করে রুলার দিয়ে সমান করার কাজ। রাস্তায় পরিবহন চলাচলের ক্ষেত্রে ধারন ক্ষমতা ঠিক রাখার জন্য। পরে শুরু করা হবে পিচের কাজ। ইতিমধ্যে যশোর পৌরসভা ও টিএন্ডটি অফিসের সাথে সমন্বয় করে কাজ দ্রুত গতিতে করা হচ্ছে। যাতে করে ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করা যায়। এ তথ্য জানান সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি জানান শহরের দড়াটানা থেকে চাঁচড়া মোড় পর্যন্ত দুই কিলোমিটার রাস্তায় দুই রকম কাজ করা হবে। এর মধ্যে দড়াটানা থেকে সার্কিট হাউজ পর্যন্ত করা হবে টু লেনের কাজ। আর সার্কিট হাউজের পর থেকে চাঁচড়া পর্যন্ত রাস্তা করা হবে ফোর লেন।

শহর ঘুরে দেখা গেছে, রাস্তা ফোর লেনের কাজ করার লক্ষে ইন্সটিটিউটের দেয়ালের সামনের ফুটপাতের ৯টি কাপড়ের দোকান উচ্ছেদ করা হয়েছে। ঈদগাহের সামনের ৩০ টি দোকানের টিনের চাল সরিয়ে নিয়েছে দোকানদাররা। যশোর পৌরসভার সচিব আজমল হোসেন জানান, ইন্সটিটিউটের দেয়ালের সামনের রাস্তার ধারে ফুটপাতে অবৈধভাবে দোকান করা হয়েছিল। তাই সেগুলো উচ্ছেদ করা হয়েছে। ঈদগাহের সামনে প্রগতি কম্পিউটারের দোকানের মালিক আল ইমরান তুহিন জানান, তারা দোকানের সামনে তিন ফুটের  চাল দিয়েছিলেন। সড়ক ও জনপথ বিভাগ থেকে মাপ দিয়ে সরিয়ে নিতে বলে যায়। তারপর সরিয়ে নেয়া হয়েছে। একই কথা জানান, আবুল কাশেম সাইকেল গ্যারেজের মালিক আবুল কাশেম। সেই সাথে রেলগেট ও চাঁচড়া এলাকার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিয়েছে মালিকরা।

এদিকে টেলিফোন লাইন ঠিক রেখে রাস্তার কাজ করতে এজন্য সাতজন শ্রমিক নিয়ে একটি টিম গঠন করা হয়েছে। রাস্তার কাজ করার সময় মাটির নিচের তারগুলো কাটা না পড়ে সেজন্য শ্রমিকরা সড়ক ও জনপথ বিভাগকে সবসময় সহযোগিতা করছে বলে জানান টিএন্ডটির বিভাগীয় প্রকৌশলী বেঞ্জুর রহমান।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, যশোর শহরের দড়াটানা থেকে চাঁচড়া মোড় পর্যন্ত দুই কিলোমিটার রাস্তা চার লেনে উন্নীতকরণের কাজ গত ২৫ এপ্রিল রমজান মাসে শুরু হলেও ১৬ মে বন্ধ রাখা হয়। কালেক্টরেট মার্কেটের কাপড় ব্যবসায়ীদের বেচাকেনার স্বার্থে কাজ বন্ধ রাখা হয়েছিল। ঈদ পার হওয়ার পর বাজারে মানুষের ভিড় কমে যাওয়ায় ৩১ মে রোববার থেকে কাজ আবারো শুরু করা হয়েছে। ডিসেম্বর মাসের মধ্যে কাজ শেষ করা হবে। তিনি আরো জানান রাস্তা ফোর লেনের কাজ হলেও দড়াটানা থেকে সার্কিট হাউজ পর্যন্ত রাস্তায় জায়গা কম। এ কারণে এই অংশে করা হবে টু লেন ও রাস্তার মাঝে নির্মান করা হবে ডিভাইডার। ফোরলেন করার মতো জায়গা থাকায় জিলা স্কুলের সামনে থেকে চাঁচড়া পর্যন্ত রাস্তা ফোর লেন করার পাশাপাশি রাস্তার মাঝে ডিভাইডার নির্মাণ করা হবে।