লখাইডাঙা থেকে মালোপাড়া ভবদহ অংশ খননে টেন্ডার প্রায় দেড় কোটি টাকা

মিরাজুল কবীর টিটো : যশোরের মণিরামপুরের লখাইডাঙা থেকে অভয়নগরের মালোপাড়া ভবদহ নদের অংশে খনন কাজের টেন্ডার হয়েছে। এ কাজে ব্যয় হবে ১ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। কাজের চুক্তি স্বাক্ষর করে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে কাজ শুরু হবে বলে জানান পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শাহারিয়ার সরকার। তিনি জানান চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার পর যে প্রতিষ্ঠান কাজ পেয়েছে সেই নাম প্রকাশ করা হবে। সেই সাথে নির্ধারণ করা হবে কাজের মেয়াদ। এর আগে কিছুই বলা যাবে না।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, মণিরামপুরের লখাইডাঙা থেকে মালো পাড়ায় ২ পয়েন্ট ১ কিলোমিটার ভবদহের অংশে কাদামাটি ভরাট হয়ে যাওয়ায় জলাদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। সেখানকার মানুষ জলাবদ্ধতা দূরিকরণের জন্য আবেদন করেছে। এলাকাবাসীর আবেদনের প্রেক্ষিতে খনন কাজের টেন্ডার করা হয়েছে গত ২২ জুন। এখন শুধু বাকি আছে চুক্তি স্বাক্ষর করার। যে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ পেয়েছে ওই প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করার পর কাজের মেয়াদ নির্ধারণ করে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে কাজ শুরু করা হবে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী শাহারিয়ার সরকার জানান, কাজ শুরু হলে মণিরামপুরের লখাইডাঙা থেকে মালোপাড়ায় ভবদহের অংশে ৭ থেকে ৮ ফুট গভীর ও ১১ মিটার চওড়া করে খনন কাজ করা হবে। বৃষ্টি হওয়ায় ড্রেজিং করে কাদামাটি অপসারণ করা হবে। পরে খনন করা হবে। ভবদহে সারা বছরই পানি থাকে । তার মধ্যেই কাজ করতে হবে। ওই অংশে প্রথম পর্যায়ে ড্রেজিং করলে মশিহাটি এলাকার পানি মুক্তেশ^রীতে নেমে যাবে। এর আগে ভবদহের জলাবদ্ধতা সমস্যা সমাধানের জন্য টি আর এম প্রকল্প কাজ করা হচ্ছিল। কিন্তু ওই প্রকল্প বাস্তবায়ন না হওয়ায় টেন্ডার দিয়ে কাজ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে অভয়নগর ও মণিরামপুরে ভবদহের স্লুইস গেটের অংশে খনন কাজ চলছে। নতুন করে মণিরামপুরের লখাইডাঙা থেকে মালো পাড়ায় ভবদহের অংশে নতুন করে খনন কাজ শুরু করা হবে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী তাওহীদুল ইসলাম জানান, কাজ শুরু করা হলে ফাঁকি দেয়ার কোন সুযোগ নেই। নিয়ম অনুযায়ী কাজ সম্পন্ন করা হবে।

এদিকে ভবদহ পানি নিষ্কাশন কমিটির প্রধান উপদেষ্টা ইকবাল কবির জাহিদ বলেছেন ভবদহরে জলাবদ্ধতা নিরাসনে জন্য আগে টিআরএম প্রকল্পে কাজ করা হচ্ছিল। এ প্রকল্প বাতিল হয়ে যাওয়ায় পানি উন্নয়ন বোর্ড টেন্ডারের মাধ্যমে খনন কাজ করে করছে। তাতে শুধু টাকা অপচয় হয়েছে। কারন ভাল ভাবে খনন না করে শুধু চ্যানেল কেটে সমস্যা সমাধান হবে না। বর্তমানে ভবদহ পাশে অনেক এলাকায় জলাবদ্ধতা হচ্ছে। জলাবদ্ধ এলাকার মানুষ আন্দোলনের জন্য সংগঠিত হচ্ছে।