কর্মচঞ্চল বেনাপোল  : ২৫০ ট্রাক পণ্য আমদানি রফতানি ৫০ ট্রাক

নিজস্ব প্রতিবেদক : বেনাপোল বন্দর দিয়ে সোমবার থেকে পুরোদমে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য সচল হয়েছে। এতে কর্মচঞ্চল হয়ে উঠেছে বন্দরটি। এদিন ভারত থেকে পণ্য নিয়ে ২৫০ ট্রাক বাংলাদেশে প্রবেশ করে। আর ভারতে গেছে বাংলাদেশের ৫০ট্রাক।

৫ জুলাই বিকেলে বাংলাদেশি ৫টি ট্রাক পণ্য ভারতে রফতানির মাধ্যমে দু’দেশের বাণিজ্য কার্যক্রমের বন্ধত্ব অবস্থা দূর হয়।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষ রপ্তানি পণ্য না নেয়ায় গত ১ জুলাই সকাল থেকে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী ও রপ্তানিকারকরা এক হয়ে বন্ধ করে দেন আমদানি বাণিজ্য কার্যক্রম। গেল ১০০ দিনে বাংলাদেশ থেকে কোনো পণ্যচালান ভারতে রপ্তানি হয়নি। অথচ লকডাউনের ৭৭ দিনের মাথায় ভারতীয় পণ্য বাংলাদেশে আসা শুরু হয়।

করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় ২২ মার্চ এই দুই বন্দরের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ হয়ে যায়। স্থানীয়ভাবে দুই দেশের বন্দর, কাস্টমস, বন্দর ব্যবহারকারীরা দফায় দফায় বৈঠকের পর গত ৭ জুন সীমান্ত বাণিজ্য সচল হয়। এরপর থেকে ভারতীয় পণ্য বাংলাদেশে আসলেও বাংলাদেশি কোনো পণ্যচালান ভারতে রপ্তানি হয়নি।

বেনাপোল আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক বলছেন, গতকাল সোমবার থেকে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য পুরোদমে শুরু হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাই বাণিজ্য কার্যক্রম চালাচ্ছেন। এতে কর্মমুখর হয়ে উঠেছে বন্দরটি।

দেশে স্থলপথে যে রপ্তানি হয় তার প্রায় ৭০ শতাংশ ভারতে যায় বেনাপোল বন্দর দিয়ে। প্রতি বছর এ বন্দর দিয়ে প্রায় দশ হাজার কোটি টাকা দামের নয় হাজার টন বাংলাদেশি পণ্য ভারতে রপ্তানি হয়। কিন্তু ভারত থেকে পণ্য আসে এর বহু গুণ।

বেনাপোল কাস্টম ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরোয়ার্ডিং এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, আমাদের আন্দোলনের মুখে ভারত রফতানিপণ্য নেয়া শুরু করেছে। ৬ জনু থেকে স্বাভাবিকভাবে সব কার্যক্রম চলছে। বেনাপোল কাস্টম ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরোয়ার্ডিং এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সাজেদুর রহমান জানান, অবশেষে বেনাপোল বন্দর আগের গতিতে ফিরে আসতে শুরু করেছে। গতকাল পুরোদমে চলেছে বাণিজ্য কার্যক্রম। এতে আমাদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

বেনাপোল কাস্টমের অতিরিক্ত কমিশনার ড, সৈয়দ নিয়ামুল ইসলাম জানান, গতকাল সোমবার থেকে দু’দেশের বাণিজ্য কার্যক্রম আগের গতিতে শুরু হয়েছে।

বেনাপোল বন্দরের উপপরিচালক মামুন তরফদার জানান, ৬ জুলাই সন্ধ্যা পর্যন্ত আড়াইশ ট্রাক পণ্য আমদানি এবং ৫০ ট্রাক পণ্য রফতানি হয়েছে। যদি রফতানিবাহি ট্রাক আরও থাকে সেগুলো পাঠানো হবে।

বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারতে সাধারণত ওভেন গার্মেন্টস, নিটেড গার্মেন্টস, নিটেড ফেব্রিকস, চিংড়ি, বিভিন্ন ধরনের মাছ, কাঁচা পাট, পাটজাত দ্রব্য (পাটের ব্যাগ, পাটের সূতা, চট), টিস্যু, সুপারি, ধানের কুড়া, কর্টন র‌্যাগস (ঝুট), ফ্লোট গাস, ব্যাটারি, জিংক পেট, সিরামিক টাইলস, সাবান, হাড়ের গুঁড়া, কাঁচা চামড়া, প্রক্রিয়াজাত চামড়া, ওষুধ, সবজি, ফল, চা, পেট্রোলিয়াম বাই প্রোডাক্ট, হস্তশিল্পজাত দ্রব্য ও সিমেন্ট রপ্তানি হয়।