যশোরে কোরবানীর পশু হাট ফাঁকা স্থানে বসানোর সিদ্ধান্ত


নিজস্ব প্রতিবেদক:
করোনাভাইরাস প্রতিরোধ যশোর জেলা কমিটির জরুরি সভা শুক্রবার জেলা সার্কিট হাউজে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় এবারের কোরবানীর পশুহাট শহরের বাইরে বড় এবং ফাঁকা মাঠে অস্থায়ীভাবে বসানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ ছাড়াও করোনায় ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে ত্রাণ সহায়তায় কোনো রকমের দুর্নীতি না হয় সেদিকে বিশেষ নজর রাখার জন্যে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান করোনা প্রতিরোধে যশোরের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল।
এ ছাড়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে মসজিদের ইমামদের মাধ্যমে স্বাস্থ্যবিধি প্রচারের বিষয়টি সভায় গুরুত্ব পায়। এ ক্ষেত্রে ইসলামিক ফাউন্ডেশন ও ইমাম পরিষদকে কাজে লাগানো হবে।
নবাগত জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন সচিব ড. মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল। উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মো. আশরাফ হোসেন, জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা লে. কর্নেল নিয়ামুল হালিম খান, সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায়, জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার উপ-পরিচালক আহমেদ কবির, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন যশোর শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা. এমএ বাশারসহ কমিটির সদস্যবৃন্দ।
সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানান, চলমান লকডাউন প্রক্রিয়া আরো কার্যকরভাবে বাস্তবায়নের জন্য পর্যাপ্ত স্বেচ্ছাসেবী নিয়োগ করে আরো বেশি টিম গঠনের কথা বলা হয়। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন স্থাপন ও উন্নতকরণের প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরা হয় । সরকারি ত্রাণ বিতরণে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদারের আহ্বান জানান সচিব। তিনি সাধারণ মানুষকে মাস্ক ব্যবহারের প্রতি সচেতনতা সৃষ্টি জন্যে সকলের প্রতি আহবান জানান। সভা থেকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন স্থাপন ও উন্নতকরণে সচিব ড. মো. আবু হেনা মোস্তফা কামালের সহযোগিতা কামনা করা হয়।
কমিটির সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন জানান, করোনা পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার জন্যে সকলকে নিজনিজ অবস্থান থেকে ভুমিকা পালন করতে হবে।