চৌগাছার সুকপুকুরিয়া ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি গঠন নিয়ে পাল্টাপাল্টি বক্তব্য

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছা উপজেলার সুখপুকুরিয়া ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি গঠন নিয়ে উপজেলা আহবায়ক ও যুগ্মআহবায়ক পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দিয়েছেন। ভোটাভুটির মাধ্যমে ইউনিয়ন কমিটি গঠিত হয়েছে উপজেলা আহবায়কের এমন দাবিকে অনৈতিক বলছেন যুগ্ম  আহবায়করা। এদিকে বিএনপির জেলা আহবায়ক জানিয়েছেন করোনার কারণে সকল কমিটি গঠন প্রক্রিয়া স্থগিত রয়েছে।

সুকপুকুরিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি কাজী আব্দুল হামিদ ও সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জানান, ২০১৯ সালের ২৭ ডিসেম্বর রামকৃষ্ণপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে ইউনিয়ন বিএনপির এক সাধরণসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়। সে সময় উপজেলার অন্য ইউনিয়নগুলোতে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা হয়। কিন্তু সুখপুকুুরিয়া ইউনিয়নে প্যানেল ভোট গ্রহণের সিন্ধান্ত দেন উপজেলা বিএনপির আহবায়ক জহুরুল ইসলাম। ভোটে আব্দুল হামিদ ও আবু মুসার নেতৃত্বে চার চার আট সদস্যের দুটি প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। উপজেলা আহবায়ক জহুরুল ইসলাম ঘোষণা করেন প্যনেল নেতাকে ভোট দিলেই চারজনকে ভোট দেওয়া হয়ে যাবে। এই ঘোষণায় দ্বিমত পোষন করেন স্থানীয় নেতারা। এক পর্যায়ে জহুরুল ইসলাম ইউনিয়নের ভোটারদের বুঝিয়ে ভোট গ্রহণ করেন। বয়স্ক ভোটার যারা নাম লিখতে পারেন না তারা  বিএনপির আহবায়ককে জানালে তিনি নিজেই লিখে দিয়ে ছিলেন। এ সময় বয়স্ক ভোটাররা অভিযোগ করেন, লিখতে না পারা ভোটারদের ভোট জহুরুল ইসলাম নিজের পক্ষের প্রার্থীর নামে লিখে দিয়ছেন। এনিয়ে দুপক্ষ বিবাদে জড়িয়ে পড়লে ফলাফল ঘোষণা না করেই জহুরুল ইসলামসহ বিএনপির নেতা স্থান ত্যাগ করেন।

সুকপুকুরিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়রম্যান কাজী আব্দুল হামিদ বলেন, সুকপুকুরিয়া ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠিত হয়নি। কমিটি অনুমোদনের কোনো রেজুলেশনে স্বাক্ষর করিনি। তিনি দাবী করেন তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত পূর্বের কমিটি বহাল রয়েছে।

উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এমএ সালাম বলেন, ভোটাররা এই কারচুপির অভিযোগ করে ফলাফল স্থগিত করার জন্য জেলা বিএনপির কাছে আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা বিএনপি দুই সদস্যের একটি দতন্ত কমিটি গঠন করে।

উপজেলা বিএনপির যুগ্মআহবায়ক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ইউনুচ আলী বলেন, বিএনপির গঠনতন্ত্র আনুযায়ি কমিটি অনুমোদন দিতে হলে আহবায়ক ও যুগ্মআহবায়কের যৌথ স্বাক্ষরিত হতে হবে। কিন্ত আহবায়ক জরুহুরুল ইসলাম এককভাবে স্বাক্ষর করে কমিটি গঠন করতে পারেননা। এটা অনৈতিক এবং দলের গঠনতন্ত্রের পরিপন্থী।

উপজেলা বিএনপির আহবায়ক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম বলেন, দলের গঠনতন্ত্র মেনেই সুকপুকুরিয়া ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়েছে।

যশোর জেলা বিএনপির আহবায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগম বলেন, করোনার কারণে বর্তমানে দলের কমিটি গঠনের সকল কার্যক্রম স্থগিত রয়েছে। ফলে সুকপুকুরিয়া ইউনিয়নের পূর্বের কমিটিই বহাল রয়েছে।