ঈদের ছুটিতে যশোরে তিন বাড়িতে চুরি

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদের ছুটিতে যশোর শহরের পৃথক স্থানে ৩টি বাড়িতে চুরির ঘটনা ঘটেছে। দুর্বৃত্তরা এসব বাসাবাড়িতে হানা দিয়ে সোনার অলঙ্কার ও নগদ টাকা ছাড়াও মূল্যবান কাপড় চোপড় চুরি করে নিয়ে গেছে।

একটি সূত্র জানায়, ঈদের দিন রাতে খড়কি বামনপাড়ার মৃত আব্দুল হাকিমের স্ত্রী সাহিদা সুলতানার বাড়িতে চুরি হয়েছে। দুর্বৃত্তরা ওই বাড়িতে হানা দিয়ে সোনার অলঙ্কার ও নগদ টাকা নিয়ে গেছে। সাহিদা সুলতানার ভাই সাজ্জাদুল আলমের অভিযোগ, তার বোন (সাহিদা সুলতানা) একটি ভবনের দোতলায় থাকেন। গত ২৮ জুলাই বোন তার নাতি মেসবাহুল জান্নাতকে (৯) নিয়ে ঢাকায় বেড়াতে যান। দোতলার বাড়িতে তালা দিয়ে গেলেও দেখভালের দায়িত্বে ছিলেন তিনি। গত ১ আগস্ট রাত ৮টার দিকে তিনি ওই বাড়িতে গিয়ে নিচের লাইট অন করে আসেন। এ সময় দেখতে পান সবকিছু ঠিকঠাক আছে। কিন্তু পরদিন সকাল ৭টার দিকে সেখানে গিয়ে দেখেন, মেইন ক্লপসিবল গেটের দুটি তালা ভাঙা। দোতলার ঘরের কাঠের দরজাও ভাঙা রয়েছে। অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা ওই ঘরের ভেতর ঢুকে আলমারি ভেঙে ২ ভরি ৫ আনা ওজনের সোনার অলঙ্কার ও নগদ ৬৫ হাজার টাকা ছাড়াও অর্ধলাখ টাকার মূল্যবান কাপড় চোপড় নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় গত সোমবার তিনি কোতয়ালি থানায় মামলা করেছেন।

এদিকে শহরের পুরাতন কসবা কাজীপাড়া আজিজ সিটির একটি বাসাবাড়িতে চুরির ঘটনা ঘটে। আজিজ সিটির জনৈক ওলিয়ার রহমানের বাড়ির দোতলার ভাড়াটিয়া আঞ্জুমান আরা পারভীনের অভিযোগ, গত ২৯ জুলাই তিনি তার বাসায় তালা দিয়ে ঈদ উদযাপনের জন্য গ্রামের বাড়ি বাঘারপাড়ার কড়াইতলায় যান। চাবি পাশের ভাড়াটিয়া রফিকুল ইসলামের কাছে রেখেছিলেন। ঈদ উদযাপন শেষে গত ৩ আগস্ট সকালে তারা গ্রামের বাড়ি থেকে যশোরে বাসায় আসেন। অবশ্য এর আগে তাদের গৃহকর্মী ইসমত আরাকে প্রতিবেশী রফিকুল ইসলামের কাছ থেকে চাবি নিয়ে ঘর খুলে রুটি বানাতে বলেছিলেন। সকাল ৮টার দিকে বাসায় পৌঁছে দেখতে পান গৃহকর্মী রুটি বানাতে ব্যস্ত আছেন। পরে ডিপ ফ্রিজ খুলে দেখতে পান সেখানে লুকিয়ে রাখা ১০ ভরি ৩ আনা সোনার অলঙ্কার নেই। এ সময় তিনি তার ঘরে থাকা বিভিন্ন তালার ৩ সেট চাবিও খুঁজে পাননি। পুলিশের একটি সূত্র জানায়, চুরি যাওয়া ওই চাবি দিয়ে হয়ত কোনো এক সময় ঘরের তালা খুলে সোনার অলঙ্কার চুরির ঘটনা ঘটেছে।

অপরদিকে শহরের রেলগেট পশ্চিমপাড়ায় ওষুধ কোম্পানির একজন ডিপো ইনচার্জের বাসায় ঈদের ছুটিতে চুরির ঘটনা ঘটে। কেমিকো ফার্মাসিটিক্যাল লিমিটেডের যশোর অফিসের ডিপো ইনচার্জ মো. আব্দুস সালাম জানান, তিনি রেলগেট পশ্চিমপাড়ার জনৈক জালাল উদ্দিনের টিনশেডের বাড়িতে ভাড়া থাকেন। একই বাসায় তার সাথে কোম্পানির শাওন নামে একজন কর্মচারী থাকেন। ঈদের ছুটিতে গত ৩০ জুলাই বিকেলে তিনি (আব্দুস সালাম) বাগেরহাটের মোংলা উপজেলার কেওড়াতলায় বাড়িতে যান। একইদিন রাত ৮টার দিকে  কর্মচারী শাওন সার্কিট হাউসের বিপরীতে ওষুধ কোম্পানির অফিস পাহারা দিতে সেখানে চলে যান। পরদিন ৩১ জুলাই সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শাওন বাসায় ফিরে এসে দেখেন ঘরের তালা ভাঙা। অজ্ঞাতনামা চোরেরা ঘরের ভেতর ঢুকে নগদ ৬৮ হাজার টাকা ও একটি ল্যাপটপ নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় তিনি কোতয়ালি থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।