নিখোঁজ সেনা সদস্যকে পাওয়া গেলো শ্বশুরবাড়ি


নিজস্ব প্রতিবেদক:
নিখোঁজ সেনা সদস্য ইসহাক জামানকে (২১) ১৫ দিন পর উদ্ধার করা হলো যশোর শহরের চাঁচড়া মধ্যপাড়া থেকে। শুক্রবার বিকেলে যশোর ডিবি পুলিশ তাকে শ্বশুরবাড়ি থেকে উদ্ধার করে।
এর আগে ইসহাক জামানের পিতা মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার হোমেরজান গ্রামের নুরুজ্জামান গত ৬ আগস্ট কোতয়ালি থানায় ছেলে হারিয়ে যাওয়ার একটি জিডি করেন। জিডি নম্বর-২৬০।
পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, ইসহাক জামান যশোর সেনানিবাসে কর্মরত। গত ২৩ জুলাই ১২ দিনের ছুটি নিয়ে তিনি যশোর থেকে মৌলভীবাজারে যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হন। কিন্তু তিনি বাড়িতে ফেরেননি। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও বন্ধ পাওয়া যায়। তার পিতা কর্মস্থল যশোরে খোঁজ নিয়ে তার সন্ধান করতে পারেননি। অন্যান্য আত্মীয় স্বজনদের কাছে খোঁজ নিয়ে ব্যর্থ হন। ফলে গত ৫ আগস্ট তিনি কমলগঞ্জ থানায় একটি জিডি (নম্বর-১৮০) করেন।
এরপর ৬ আগস্ট তিনি যশোর কোতয়ালি থানায় একটি জিডি করেন। জিডির তদন্তের দায়িত্ব পান ডিবি পুলিশের এসআই মফিজুল ইসলাম। তিনি তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে জানতে পারেন নিখোঁজ ইসহাক জামান যশোরের চাঁচড়া মধ্যপাড়া শান্তি মেম্বারের বাড়ির পাশে শ্বশুর আলাউদ্দিন মনুর বাড়িতে অবস্থান করছেন। শুক্রবার সেখানে গিয়ে ইসহাক জামানকে উদ্ধার করেন এসআই মফিজুল ইসলাম।
তিনি আরো জানিয়েছেন, চলতি বছরের ১৬ জানুয়ারি ইসহাক জামান গোপনে পরিবারের কাউকে না জানিয়ে বিয়ে করেন আলাউদ্দিন মনুর মেয়ে সাহারা পারভীন যুঁথীকে (১৯)। ফেসবুকের মাধ্যমে তাদের পরিচয় এবং পরে এক সময় শহরের দড়াটানায় দেখা হয় তাদের। পরে পরিবারের কাউকে না জানিয়ে ইসহাক বিয়ে করেন যুঁথীকে। যুঁথীর এটি দ্বিতীয় বিয়ে। ঘোপ এলাকার একটি বাড়িতে থাকেন তারা। ঈদের ছুটিতে ইসহাক মৌলভীবাজারে না গিয়ে শ্বশুরবাড়িতে ওঠেন। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে রাখেন। পরিবারের লোকজন তার নিখোঁজ হওয়ার সংবাদ পুলিশকে জানালে ইসহাকের নিখোঁজ হওয়ার গল্প শুক্রবার জানা যায়। তাকে সেনা কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে এসআই মফিজুল ইসলাম জানিয়েছেন।