বঙ্গমাতার মতো মহিয়সী নারী পৃথিবীতে বিরল :  শেখ আফিল উদ্দিন এমপি

শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল : যশোর-১ (শার্শা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, “সংসার সুখের হয় রমনীর গুণে” কথাটি যেমন বাস্তব সত্য তদ্রুপ একজন নিষ্ঠাবান দায়িত্বশীল নেতা হতে হলে সবার আগে স্ত্রীর অনুপ্রেরণা একান্ত প্রয়োজন। অনেক স্ত্রী আছেন দলের সুসময়ে স্বামীদেরকে স্বার্থের মোহে সামনের দিকে এগিয়ে দেয় এবং দুঃসময়ে সংসার পরিজনের কথা ভেবে পেছন থেকে টেনে ধরে। সেখানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা দলের সুখে দুখে সবসময়ে তাঁর স্বামীকে দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন। সংসার ছেলেমেয়েদের কথা না ভেবে দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে স্বামীকে বিলিয়ে দিয়েছেন। যার সার্বিক অনুপ্রেরণায় বঙ্গবন্ধু কেবল বাংলাদেশের নেতা নয়, তিনি বিশ^ নেতার আসনে অলংকৃত হয়েছেন। তাই, বঙ্গমাতার মতো এমন মহিয়সী নারী পৃথিবীতে বিরল। শনিবার সকাল ১০ টায় শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব এর ৯০ তম জন্মদিন উদযাপন উপলক্ষে আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জুর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক আলহাজ নুরুজ্জামানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত দোয়া অনুষ্ঠানে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন, বঙ্গমাতা ফজিলাতুননেছা এমন একজন নারী ছিলেন যার জীবনাদর্শ থেকে আমাদের মেয়েরা শিক্ষা লাভ করলে এদেশ একদিন উন্নয়নের চরম শিখরে পৌঁছাবে। এসময় তিনি শোকের মাস আগস্টের মর্মকথা অনুভব করে শোককে শক্তিতে রুপান্তরিত করে সামনের দিকে এগিয়ে চলার আহবান জানান।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত ইসলামের শাসনামল ২০০১ পরবর্তী সময়গুলো আমি আর দেখতে চাই না। কারো হাত নেই, কারো পা নেই। মাথা ফাটা। লাশ পড়ে আছে খালে-বিলে-রাস্তার ধারে। জমির ফসল কেটে নিয়ে গেছে। হালের গরু ধরে নিয়ে গেছে ওই জামায়াত-বিএনপির লুটতরাজ দুর্বৃত্তরা। মামলা-মোকদ্দমা আরো কতো কিছু। এসময় তিনি দলের ভিতর থাকা সকল কলোহ বিবাদ মিটিয়ে ফেলে একসাথে চলার আহবান জানান। এসময় সাংসদ শেখ আফিল উদ্দিন রাগকে হারাম করে কারো উপর প্রতিশোধ না নেয়া বা সকল ধরণের অপরাধ না করার আহবান জানান। তিনি বলেন, স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি জামায়াত-বিএনপিকে দুর্বল ভাবলে চলবে না। তারা এখনও পর্যন্ত দেশের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কৌশলে ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। তারা আমাদের সাথে মিশে একাকার হয়ে গিয়ে আওয়ামী লীগের উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্ত করার অপচেষ্টা করছে। তাই দলের ভিতরে লুকিয়ে থাকা সকল রাগ, হিংসা পরিহার করে একে অন্যের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে আমাদেরকে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে। সকল অপশক্তি রুখে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ নির্মাণ করতে হবে। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক লতা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আলহাজ সালেহ আহমেদ মিন্টু, যুগ্ম সম্পাদক ও যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদ আসিফ-উদ-দৌলা অলোক, শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ওয়াহিদুজ্জামান অহিদ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, ডেপুটি কমান্ডার নাসির উদ্দিন ও সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবলু। উক্ত বর্ধিত সভায় আরো বক্তব্য প্রদান করেন বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব এনামুল হক মুকুল, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ নাসির উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব মনিরুজ্জামান ঘেনা, শার্শা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য অহিদুজ্জামান অহিদ, সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন, সদর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ মোরাদ হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার, বেনাপোল ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ বজলুর রহমান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি তাহাজ্জেল হোসন, সাধারণ সম্পাক সাহিদুজ্জামান শহীদ, বাহাদুরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, লক্ষণপুর ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারা বেগম, আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামছুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান কামাল হোসেন, নিজামপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আযাদ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল ওহাব, সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন, ডিহি ইউপি চেয়াম্যান হোসেন আলী, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুর রহমান, উলাশী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ আয়নাল হক, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আবুল কালাম আযাদ, সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ ইলিয়াস কবির বকুল, কায়বা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান হাসান ফিরোজ আহমেদ টিংকু, সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, গোগা ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন, পুটখালী ইউপি চেয়ারম্যান হাদিউজ্জামান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেনসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।