যশোরের ১৭ অবৈধ হাসপাতাল বন্ধ

বিল্লাল হোসেন : যশোরে গত ২০ দিনের অভিযানে স্বাস্থ্য বিভাগ ১৭ টি অবৈধ হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করে দিয়েছে। একসাথে এতগুলো প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে রীতিমতো রেকর্ড সৃষ্টি করেছে যশোর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানিয়েছেন অবৈধ হাসপাতাল ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

অবৈধ এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে গত ২১ জুলাই থেকে অভিযান শুরু করেছে যশোরের স্বাস্থ্য বিভাগ। ৯ আগস্ট পর্যন্ত বন্ধ করা হয়েছে ১৭ টি হাসপাতাল ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বন্ধ হওয়া হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো হলো যশোর শহরের নওয়াপাড়া রোডের ল্যাবজোন হাসপাতাল, দেশ ক্লিনিকের ডায়াগনস্টিক, যশোর ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ঘোপ সেন্ট্রাল রোডের সততা ডায়াগনস্টিক সেন্টার, আধুনিক হাসপাতালের ডায়াগনস্টিক কার্যক্রম, মুজিব সড়কের ল্যাব এইড হাসপাতাল, সদরের বসুন্দিয়ার মহুয়া ক্লিনিক, খাজুরার মাতৃভাষা ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ফারিহা হাসপাতাল, মণিরামপুর উপজেলার মুন হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার (হাসপাতাল মোড় শাখা), নিউ প্রগতি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার, নিউ লাইফ ডায়াগনস্টিক সেন্টার, মুন হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার (কুয়াদা শাখা), চৌগাছা উপজেলার কপোতাক্ষ ক্লিনিক, মায়ের দোয়া পাইভেট ক্লিনিক, বিশ্বাস ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও পল্লবী ক্লিনিক।

যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানিয়েছেন, জেলার অবৈধ হাসপাতাল ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিদিন কোনো না কোনো প্রতিষ্ঠান অভিযান বা পরিদর্শন করা হচ্ছে।  প্রতিষ্ঠান মালিকরা স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালকের কাছে নতুন লাইসেন্স বা হালনাগাদ লাইসেন্সের জন্য অনলাইনে আবেদন করেছেন। কিন্তু নানা কারণে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে এখনো অনুমোদন মেলেনি। লাইসেন্স পাওয়ার আগেই প্রতিষ্ঠানগুলো নানা অনিয়মের মধ্যদিয়ে অবৈধভাবে পরিচালনা করা হচ্ছে। চিকিৎসার নামে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ১৭ প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হয়েছে। এছাড়া আরও ৪টি প্রতিষ্ঠানে নানা দোষত্রুটি সংশোধনের জন্য আল্টিমেটাম হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে মালিকপক্ষ ত্রুটি সংশোধনে ব্যর্থ হলে পরবর্তী পরিদর্শনের সময় প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, যশোরে জেলায় মোট বেসরকারি হাসপাতাল ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে ২৬২ টি। এরমধ্যে ২১১ টি অবৈধ।