হোটেলে নিয়ে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ, আটক ৩

স্পন্দন নিউজ ডেস্ক : বরিশালের এক আবাসিক হোটেলে গৌরনদী সরকারি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির এক ছাত্রী গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

রোববার (০৯ আগস্ট) ওই কলেজছাত্রী নিজেই বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন।

এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় আটক হওয়া তিনজনকে ধর্ষণ মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে বিকেল কারাগারে পাঠানো হয়।

এরআগে, শনিবার (০৮ আগস্ট) গভীররাতে নগরীর সাগরদী ব্রিজ এলাকার ‘হোটেল মুন’-এ ওই কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

মামলা ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, পিরোজপুরের ইন্দুরকানী এলাকার সজলের সঙ্গে বরিশালের গৌরনদীর শরিকল গ্রামের ওই কলেজছাত্রীর পাঁচ বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। শনিবার বিয়ের কথা বলে ওই কলেজছাত্রীকে বরিশালে এনে ‘হোটেল মুন’ এর একটি কক্ষে নিয়ে যায়। সেখানে সজল তাকে ধর্ষণ করেন।

বিষয়টি টের পেয়ে হোটেলের অপর বোর্ডার মিজানুর রহমান জাকির হোটেল ম্যানেজার আব্দুর রাজ্জাক হাওলাদারের সহায়তায় সজলকে ওই রুম থেকে বের করে দেন। এরপর ওই কলেজছাত্রীকে হোটেল ম্যানেজারের সহযোগিতায় বোর্ডার মিজানুর রহমান জাকির একাধিক বার ধর্ষণ করেন।

তখন ওই কলেজছাত্রীর চিৎকারে শুনতে পেয়ে দুই ব্যক্তি টহল পুলিশকে জানালে, পুলিশ নির্যাতিতাকে উদ্ধার এবং ওই তিনজনকে আটক করে।

আটকরা হলেন, সজল কর্মকার (২৫), মিজানুর রহমান জাকির (৫৩), আব্দুর রাজ্জাক হাওলাদার (৫৫)। প্রথম দুইজন ধর্ষনের অভিযোগ এবং পরেরজন তাদের সহযোগিতা করার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছেন।

এদিকে, হোটেল বোর্ডার মিজানুর রহমান জাকিরকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ফাঁসানো হয়েছে বলে দাবি করেন তার ভাই বশির উদ্দিন।

কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুরুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।