ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে মুছে ফেলতে পারেনি :  এমপি শাহীন চাকলাদার

 

সিরাজুল ইসলাম, কেশবপুর : সংসদ সদস্য ও যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার বলেছেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন বাঙালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা, মহান স্বাধীনতার রূপকার। ১৯৪৮ সালে ভাষার দাবিতে গঠিত সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বসহ ১৯৫২ এর মহান ভাষা আন্দোলন, ৫৪ এর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ৫৮ এর সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলন, ৬২ শিক্ষা কমিশনবিরোধী আন্দোলন, ৬৬ এর ৬-দফা, ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান, ৭০ এর নির্বাচনসহ বাঙালির মুক্তি ও অধিকার আদায়ে পরিচালিত প্রতিটি গণতান্ত্রিক ও স্বাধিকার আন্দোলনে তিনি নেতৃত্ব দেন। এজন্য তাকে বারবার কারাবরণ করতে হয়।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি জনগণের অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনের লক্ষ্যে সারাজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত ‘সোনার বাংলা’ প্রতিষ্ঠাই ছিল তার স্বপ্ন।

ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে পারলেও তার আদর্শকে মুছে ফেলতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ আজ অভিন্ন সত্তায় পরিণত হয়েছে। ঘাতকচক্র জাতির পিতাকে হত্যা করলেও তার নীতি ও আদর্শকে মুছে ফেলতে পারেনি। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন জাতির পিতার নাম এ দেশের লাখো-কোটি বাঙালির অন্তরে চির অমলিন, অক্ষয় হয়ে থাকবে।

গতকাল সন্ধ্যায় কেশবপুর পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ও পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলামের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আবু শারাফ সাদেক অডিটোরিয়ামে শোক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেছেন। পৌর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক আব্দুস সোবহান গাজীর সভাপতিত্বে ও পৌর যুবলীগের সভাপতি কার্ত্তিক সাহার সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিন, সহসভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ এম আমির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা ও পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ডের সভাপতি রমজান আলী মোড়ল, পৌর কাউন্সিলর মফিজুর রহমান খান, পৌর কাউন্সিলর মনিরা খানম, পৌর কৃষকলীগের সভাপতি আব্দুল গফুর, পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক আবুল বাসার খান, পৌর আওয়ামী লীগনেতা কামরুজ্জামান কামরুল, হুমায়ুন কবির, পৌর ছাত্রলীগনেতা সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি তপন কুমার ঘোষ মন্টু, যশোর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলাম, যশোর শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বিপু, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ হাসান সাদেক, কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক ভাইস চেয়ারম্যান নাসিমা সাদেক, সাংগঠনিক সম্পাদক গৌতম রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর শেখ এবাদত সিদ্দিক বিপুল, দপ্তর সম্পাদক মফিজুর রহমান মফিজ, সিনিয়র আওয়ামী লীগনেতা আব্দুল করিম, দুলাল সাহা, সুফলাকাটি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ মাষ্টার, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক এ্যাড. মিলন মিত্র, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক পৌর কাউন্সিলর জামাল উদ্দীন সরদার, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক প্যানেল মেয়র বিশ্বাস শহিদুজ্জামান শহিদ, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রাবেয়া ইকবাল, সাধারণ সম্পাদিকা মমতাজ বেগম, উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি সৈয়দ নাহিদ হাসান, সাধারণ সম্পাদক রমেশ দত্ত, শ্রমিকলীগনেতা মুনছুর আলী, পৌর কাউন্সিলর আব্দুস সাত্তার খান, পৗরসভার ১ নং ওয়ার্ডের সভাপতি পৌর কাউন্সিলর আতিয়ার রহমান, ২ নং ওয়ার্ডের সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, ৩ নং ওয়ার্ডের সভাপতি মশিয়ার রহমান, ৪ নং ওয়ার্ডের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম, ৫ নং ওয়ার্ডের সভাপতি জালাল উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, ৬ নং ওয়ার্ডের সভাপতি মনোয়ার হোসেন মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক বজলুর রহমান, ৭ নং ওয়ার্ডের সভাপতি আব্দুল আজিজ, ৮ নং ওয়ার্ডের সভাপতি  আব্দুল গফুর, সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান, ৯ নং ওয়াডের সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান গাজী, পৌর আওয়ামী লীগনেতা সৈয়দ আকমল আলী, যুবলীগনেতা হাসান প্রমুখ।