কিম জং উন কি মারা গেছেন ?

স্পন্দন আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কিম জং উন। নিজের যেমন সবকিছু রহস্যময় করে রেখেছেন, তেমনি তার দেশটার কার্যক্রমও ধোঁয়াশাপূর্ণ।
আর সে কারণে তাকে নিয়ে গুজব গুঞ্জনও বেশি।

কয়েকদিন ধরেই গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে, কিম গুরুতর অসুস্থ। তিনি কোমায় চলে গেছেন। সবশেষ গুঞ্জন হলো, তিনি মারা গেছেন।

সম্প্রতি উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম তার বোনের কাছে রাষ্ট্রের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব হাস্তান্তর করায় এ গুঞ্জন আরও জোরালো হয়েছে। অন্যদিকে কিমকে দেখাও যাচ্ছে না কোথাও।

শনিবার সেই গুঞ্জনের আগুনে ঘি ঢেলেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার এক সাবেক কূটনীতিক। তিনি বলেছেন, কিম এখন কোমায়। রাষ্ট্রের দায়িত্ব নিচ্ছেন তার ছোট বোন কিম ইয়ো জং।

কিমের অফিস দেশের মানুষের কাছেও বিষয়টি খোলাশা করছে না। ফলে উত্তর কোরিয়ার মানুষও এক ধরনের গুঞ্জন নিয়েই আলোচনা করছে।

কয়েক মাস আগেও গুঞ্জন উঠেছিল যে কিম মারা গেছেন। তখন তড়িঘড়ি তার কিছু ছবি প্রকাশ করে উত্তর কোরিয়ার সরকারি সংবাদমাধ্যম। সেগুলো দেখিয়ে দাবি করা হয়, কিছুই হয়নি। কিন্তু ৩৬ বছর বয়সী এই স্বেচ্ছাচারী নেতাকে এপ্রিল মাসের পর থেকে জনসমক্ষে দেখা যায়নি।

গত ১১ এপ্রিল একটি সরকারি অনুষ্ঠানে শেষ দেখা গিয়েছিল কিমকে। তারপর থেকেই সন্দেহ দানা বাঁধতে থাকে। পিয়ংইয়ং তখন জানিয়েছিল, এই সব জল্পনা ভুয়া। কিমের একটি অস্ত্রোপচার হয়েছিল, তবে তিনি পুরোপুরি সুস্থ।

ওই সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও বলেছিলেন, আমি মনে করি কিম সুস্থ আছেন।

কিন্তু এবার গুঞ্জন চলমান থাকলেও আগের মতো কোনো ছবি এখনও প্রকাশ করেনি পিয়ং ইয়ং। অন্যদিকে রাষ্ট্রের সব অনুষ্ঠানেই তার বোনকে দেখা যাচ্ছে। কিমের পর তার বোনই উত্তর কোরিয়ার সবচেয়ে বেশি ক্ষমতাধর।

কিমের দাদা ও উত্তর কোরিয়ার সাবেক শাসক কিম ইল সাংয়ের জন্মদিন পালনের অনুষ্ঠানেও কিম অনুপস্থিত ছিলেন।

কিম মারা গেছেন কি বেঁচে আছেন, এর কোনোটিই নিশ্চিত হওয়ার সুযোগ নেই, যতক্ষণ পর্যন্ত কিমের অফিস কিছু না বলছে।