খুলনা মুক্তি সেবা সংস্থা থেকে চাকরি ছাড়তে গেলে কর্মীদের হয়রানি


নিজস্ব প্রতিবেদক:
খুলনা মুক্তি সেবা সংস্থার মাঠপর্যায়ে কর্মরতরা চাকরি ছাড়তে গেলে চরম বিপাকে পড়েন। চাকরির সময় দেয়া ব্লাঙ্ক চেক ও স্ট্যাম্পে কর্তৃপক্ষ মনগড়া চুক্তিনামা লিখে মামলা দিয়ে হয়রানি করে। মঙ্গলবার যশোর চাঁচড়া শাখায় কর্মরত সিও মিন্টু রহমান প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাবেক সহকর্মী রূহী দাম।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০১৬ সালের জুন মাসে খুলনা মুক্তি সেবা সংস্থায় তিনি চাকরি নেন। এ সময় শর্ত অনুযায়ী তার নিজ নামীয় ব্যাংক হিসাবের তিনটি চেক, অভিভাবকের তিনটি চেক, স্ট্যাম্প ও মুল সার্টিফিকেট জমা দেন। কয়েক বছর তিনি চাকরি পাবার পর সম্প্রতি চাকরি ছেড়ে দিবেন বলে যশোর এরিয়া ম্যানেজার আরএম হাফিজুর রহমানকে জানান। এতে তিনি চরম ভাবে তার উপর ক্ষিপ্ত হন। তার দেয়া ব্লাঙ্ক চেক ও স্ট্যাম্পে মনগড়া চুক্তিনামা করে মামলা করবে বলে হুমকি দেন। এছাড়া এরিয়া ম্যানেজার নানা অনিয়মের সাথে জড়িত। বহু গ্রাহকের টাকা আত্মসাত করে ঋণের টাকা পরিশোধ করেননি বলে নোটিশ দিয়ে মামলা দেন। কল্যাণ ফান্ড ও লভ্যাংশের টাকা আত্মসাত করে তিনি এখন অনেক টাকার মালিক। এরিয়া ম্যানেজারের অনিয়মের ব্যাপারে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ ও হয়রানির হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।