বেনাপোল দিয়ে ভারতীয়দের  যাওয়া আসা বেশি

নিজস্ব প্রতিবেদক: আটকে পড়া ভারত-বাংলাদেশ পাসপোর্টধারীদের দেশে ফেরার পরিমাণ কমে আসছে। গত ১২ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ থেকে ভারতে ফিরে গেছেন ১৮ জন ভারতীয়, এছাড়াও ভারতে বেড়ানো ও কাজের কারণে গেছেন ৬ জন বাংলাদেশি। অপরদিকে, ভারত থেকে দেশে ফিরেছেন ৯ জন আর ভারতীয় পাসপোর্টধারী এসেছেন ১২ জন। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশি পাসপোর্ট যাত্রী ভারতে প্রবেশের চাইতে ভারতীয় পাসপোর্টধারী যাত্রী বাংলাদেশে আসার পরিমাণ দ্বিগুণেরও বেশি।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণ দেখিয়ে ১৩ মার্চ থেকে ভারতে প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা জারি করে ভারত সরকার। এতে করে ভারতীয় পাসপোর্ট যাত্রীরা আটকা পড়ে বাংলাদেশে। ১৮ আগস্ট ভারতীয় হাই কমিশনারের অনুমতিপত্র ও সঙ্গে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট নিয়ে ভারতে প্রবেশ করার শর্ত দেয় দেশটির সরকার। এই শর্ত মেনে ১৮ আগস্ট সকাল থেকে ভারতে প্রবেশ করতে শুরু করেছেন ভারতীয় পাসপোর্ট যাত্রীরা। পাশাপাশি জরুরি কাজে দুএকজন বাংলাদেশি পাসপোর্ট যাত্রীদেরও ভারতে যেতে দেখা গেছে। একইসঙ্গে দেশটিতে আটকা পড়া বাংলাদেশিরাও সড়ক পথে ফিরতে শুরু করেছে। এর আগে ভারতে আটকা পড়া বিপুল সংখ্যক যাত্রীকে বিমানপথে দেশে ফিরিয়ে এনেছিল সরকার।

এ যাতায়াত শুরুর ২৬তম দিন ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে ফিরেছেন ৪ হাজার ১০৬ ভারতীয় পাসপোর্টধারী যাত্রী। পাশাপাশি বিভিন্ন কাজে ভারতে গেছেন মাত্র ১৪৪ জন বাংলাদেশি। এই সময়ের মধ্যে ভারত থেকে বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী যাত্রী দেশে ফিরেছেন ১১৯০ জন। এবং ভারতীয় যাত্রী এসেছে ৩৩৪ জন।

ভারতীয় পাসপোর্টধারী পঞ্চানন বলেন, ‘আমার বাড়ি দিল্লিতে। এ বছরের মার্চ মাসে টাঙ্গাইলের এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলাম। দীর্ঘদিন পর আজ দেশে ফিরে যাচ্ছি। বাংলাদেশিরা আসলেই খুব উদার মনের।’

বেনাপোল আন্তর্জাতিক ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আহসান হাবীব জানান, ভারত সরকারের নির্দেশে বাংলাদেশে আটকা পড়া ভারতীয় নাগরিকরা দেশে ফিরে যাচ্ছেন। বাংলাদেশি যাত্রীরাও অনেকে শর্তসাপেক্ষে ভারতে প্রবেশ করছেন। গত ২৬ দিনে ১৪৪ বাংলাদেশিসহ ৪ হাজার ২৫০ জন ভারতীয় পাসপোর্ট যাত্রী ইমিগ্রেশনের কার্যক্রম শেষ করে ভারতে গেছেন। আর ভারত থেকে ৩৩৪ জন ভারতীয়সহ ১ হাজার ৫২৪ বাংলাদেশি যাত্রী দেশে ফিরে এসেছে। তবে উভয় দেশে যাত্রী যাতায়াত দিন দিন কমে আসছে।