ঘুরে দাঁড়াচ্ছে বিশ্ব অর্থনীতি

স্পন্দন নিউজ ডেস্ক : করোনাভাইরাস মহামারির কারণে কয়েক মাস আগেও বিশ্বের শীর্ষ অর্থনীতিগুলোতে বিশাল ধাক্কার আশঙ্কা করা হলেও বর্তমানে তাতে ইতিবাচক পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। এই ধাক্কা ততটা খারাপ নাও হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর সংগঠন অর্গানাইজেশন ফর ইকোনমিক কোঅপোরেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ওইসিডি)।

বুধবার বিশ্ব অর্থনীতির চলতি বছরের পূর্বাভাস সূচকের হালনাগাদ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সংগঠনটি। করোনাভাইরাস মহামারি সাম্প্রতিক ইতিহাসে বিশ্ব অর্থনীতিতে নজিরবিহীন সঙ্কোচন ঘটালেও গত জুনের পর থেকে সেই পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি ঘটছে বলে প্রতিবেদনে জানিয়েছে ওইসিডি।

প্যারিসভিত্তিক এই সংগঠন বলেছে, চলতি বছরে বিশ্ব অর্থনীতি সাড়ে চার শতাংশ সঙ্কুচিত হতে পারে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। তবে ২০২১ সালে বিশ্ব অর্থনীতি ৫ শতাংশ ইতিবাচক বৃদ্ধি ঘটবে।

যদিও গত জুনে সংগঠনটি চলতি বছরে বিশ্ব অর্থনীতি ৬ শতাংশ সঙ্কুচিত এবং পরবর্তী বছর ৫ দশমিক ২ শতাংশ বৃদ্ধি ঘটতে পারে বলে আভাস দিয়েছিল। তবে বিশ্বের শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে অসামঞ্জস্য দেখা যেতে পারে বলেও সতর্ক করে দিয়েছে সংগঠনটি।

চলতি বছর যুক্তরাষ্ট্র, চীন এবং ইউরোপের দেশগুলোর অর্থনীতি জুনের প্রাক্কলনের চেয়ে ভালো করবে বলে জানিয়েছে ওইসিডি। সংগঠনটি বলছে, বিপরীতে মেক্সিকো, আর্জেন্টিনা, ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, ইন্দোনেশিয়া এবং সৌদি আরবের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোতে নেতিবাচক চিত্র দেখা যেতে পারে।

বিশ্বের বৃহত্তম ২০ অর্থনীতির জোট জি২০ ভূক্ত দেশগুলোর মধ্যে চলতি বছরে একমাত্র চীনের ১ দশমিক ৮ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির প্রত্যাশা করা হচ্ছে। সেই তুলনায় বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রবৃদ্ধি ৩ দশমিক ৮ শতাংশ সঙ্কোচন হতে পারে। ইউরো ব্যবহারকারী ১৯ দেশের অর্থনীতির সার্বিক সঙ্কোচন ৭ দশমিক ৯ শতাংশ হারে ঘটতে পারে।

চীনে গত আগস্ট মাসে খুচরা বিক্রির পরিমাণ আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে বেশি হয়েছে বলে মঙ্গলবার জানিয়েছে বেইজিং। চলতি বছরে চীনে প্রথমবারের মতো খুচরা বিক্রি বৃদ্ধির ঘটনা এটি।

বিশেষ নীতিমালাগুলোর পাশাপাশি করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে আনার সক্ষমতা চীনের অর্থনীতির দ্রুত ঘুরে দাঁড়ানোর পথ প্রশস্ত করেছে। এছাড়াও দেশটির শক্তিশালী অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগও এতে সহায়তা করেছে বলে উল্লেখ করে ওইসিডি।

বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর এই সংগঠন বলছে, ২০২০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার অর্থনীতি সাড়ে ১১ শতাংশ হারে সঙ্কুচিত হতে পারে। মেক্সিকো এবং ভারতের অর্থনীতিও ১০ দশমিক ২ শতাংশ হারে সঙ্কুচিত হওয়ার পথে রয়েছে।

সূত্র: সিএনএন, সিএনবিসি।