মাদক ও নিরক্ষরমুক্ত উপজেলা গড়তে চান আনোয়ার হোসেন বিপুল


মিরাজুল কবীর টিটো:
যশোর সদর উপজেলাকে মাদক ও নিরক্ষরমুক্ত আধুনিক উপজেলা গড়ার লক্ষ্যে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চান বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বিপুল। তিনি দলীয় মনোনয়ন নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে ১৫টি ইউনিয়নের সকল রাস্তা কালভার্টের উন্নয়ন করবেন। শিক্ষা ও ধার্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের পাশাপাশি খেলাধূলায় সার্বিক সহযোগিতা করবেন। পাশাপাশি মাদক, যৌতুক , নারী নির্যাতন বাল্য বিবাহের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন তিনি। এছাড়াও বেকার যুবকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করার কথা বলেছেন। স্পন্দনের সাথে সাক্ষাতকারে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, ভাইসচেয়ারম্যানের কাজ করার তেমন সুযোগ থাকে না। তারপরও করোনা ভাইরাসের সংকটময় পরিস্থিতিতে আমি সাধারণ মানুষের মাঝে লিফলেট, হ্যান্ডস্যানিটাইজার বিতরণ করি। পাশাপাশি অসহায় দরিদ্র , কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিয়েছি।
আনোয়ার হোসেন বিপুল বলেন, ‘আমি ১৯৯৬ সালে থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। ওই সময় কালিগঞ্জ হাট বারোবাজার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলাম। পরবর্তীতে নতুন খয়েরতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করি। ২০১০ সালে যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। এরপর বাংলাদেশ স্থল বন্দর কমিটির সদস্য ও ২০১৯ সালে জনগনের ভোটে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হই । রাজনৈতিক জীবন শুরুতে ১৯৯৬ সালের অসহযোগ আন্দোলনে ও ২০০১ সালের নির্বাচনের পরে জামায়াত জোট সরকারের বিরুদ্ধে সকল আন্দোলনে শেখ হাসিনার আহবানে সক্রিয়ভাবে অংশ গ্রহন করি। জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক থাকাকালীন যশোরের সকল কলেজের কাম্পাস শিবির সন্ত্রাসমুক্ত ঘোষণা করা হয়। ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেনের সময় দলের সভাপতি শেখ হাসিনার মুক্তির জন্য ২৪ জন কর্মী নিয়ে সর্বপ্রথম মিছিল করি, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি আন্দোলনের মাধ্যমে জামাতশিবিরের জালাওপোড়াও প্রতিরোধ করি। মাঠ পর্যায়ের রাজনীতির করার কারনে উপজেলাবাসির সাথে আমার প্রাণের সম্পর্ক গড়ে উঠেছে। একারনে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচন করলে উপজেলা বাসি আমাকে ভোট দিয়ে অবশ্যই জয়যুক্ত করবে ইনশাল­াহ।
রাজনীতির পাশাপাশি তিনি মাস্টার্সে প্রথম শ্রেণিতে উন্নীত হয়েছেন। একই সাথে এলএলবি, এলএলএম ডিগ্রি লাভ করেছেন।