পুটখালি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক হত্যা মামলার রায়ে একজনের যাবজ্জীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক : বোনাপোল পুটখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক হত্যা মামলায় জিয়ারুল ইসলাম জিয়াকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দিয়েছে আদালত। এ মামলার অপর ১৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগে প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের খালাস দেয়া হয়েছে। রোববার এক রায়ে বিশেষ দায়রা জজ ও স্পেশাল জজ (জেলা ও দায়রা জজ) আদালতে বিচারক মোহাম্মদ সামছুল হক এ সাজা দিয়েছেন। সাজাপ্রাপ্ত জিয়া বেনাপোলের মহিষাডাঙ্গা গ্রামের সুলতান মোড়লের ছেলে। রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করে স্পেশাল পিপি সাজ্জাম মোস্তফা রাজা ।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, ২০১৩ সালের ২৪ মার্চ সন্ধ্যায় পুটখালীর বারোপোতা গ্রামের আকবর আলীর বাড়ির সামনে সন্ত্রাসীরা গুলি ও কুপিয়ে হত্যা করে চেয়ারম্যান রাজ্জাককে। এ ব্যাপারে নিহত রাজ্জাকের ছেলে হাসানুজ্জামান বাদী হয়ে ১০ জনের নাম উল্লেখসহ অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে হত্যা মামলা করেন। এ মামলার তদন্ত শেষে ওই ১৬ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট জমা দেন ডিবি পুলিশের তৎকালিন এসআই আবুল খায়ের মোল্লা। এ মামলার দীর্ঘ স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামি জিয়ারুল ইসলাম জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগে প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক তাকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছর কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন। এ মামলার অপর ১৫ আসামির বিরুদ্ধে স্বাক্ষীদের বক্তব্যে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের খালাস দেয়া হয়েছে।

খালাস প্রাপ্তরা হলো, বেনাপোল মহিষাডাঙ্গা গ্রামের হযরত মল্লিকের ছেলে অবায়, গুড়ে গম্বুজের ছেলে রফিকুল ইসলাম, পাচু মোড়লের ছেলে নুরু, কৃষ্ণপুর গ্রামের আব্দুল গফ্ফারের ছেলে মাহবুব, পুটখালী গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে তরিকুল ইসলাম, কৃষ্ণপুর গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে হারুন অর রশিদ, শীবনাথপুর গ্রামের সাইফুল ইসলামের ছেলে মোমিনুর রহমান, মহিষাডাঙ্গার পাচু মোড়লের ছেলে আলা, মোশারফ মোড়লের ছেলে রয়েল, জহির মল্লিকের ছেলে মনিরুল, কৃষ্ণপুর গ্রামের মতিয়ার রহমানের ছেলে মশিয়ার, বারোপোতা গ্রামের আহম্মদ আলী ওরফে কেলে আহম্মেদের দুই ছেলে আল আমিন ও রুহুল আমিন, দৌলতপুর গ্রামের শেখ আব্দুল্লার ছেলে মেহেদী হাসান সীমান্ত এবং বারপোতা গ্রামের বেলায়েত হোসেনের ছেলে ইউসুফ মোড়ল। সাজাপ্রাপ্ত জিয়ারুল ইসলাম জিয়া জামিনে মুক্তি পেয়ে পলাতক রয়েছেন।