ধারের টাকা না পেয়ে গৃহবধূর মুখে  বিষ ঢেলে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ !

নিজস্ব প্রতিবেদক : সুদে নেয়া টাকা পরিশোধ না করায় লিপি বেগম (৩৫) নামে এক গৃহবধূকে প্রথমে মারপিট এবং পরে জোর করে মুখে বিষ ঢেলে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। ওই গৃহবধূ বর্তমানে ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিসাধীন রয়েছেন।  এই ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী যশোর সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা পূর্বপাড়ার রফিকুল ইসলাম তিনজনের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযুক্তরা হলো, একই এলাকার সোহাগ ও তার স্ত্রী পারুল এবং হাফিজুর রহমানের ছেলে অন্তু।

লিখিত অভিযোগে রফিকুল ইসলাম উল্লেখ করেছেন, অভিযুক্তরা এলাকায় বিভিন্ন মানুষকে উচ্চহারে সুদে টাকা ধার দিয়ে থাকে। প্রয়োজন হওয়ায় তার স্ত্রী লিপি বেগমের বোন মুন্নী ২০ হাজার টাকা ধার নেন। পরে টাকা নিয়ে স্বামীর সাথে গোলযোগের কারণে মুন্নী পুলিশ লাইন টালিখোলা এলাকার তার পিতার বাড়িতে চলে যান। কিন্তু অভিযুক্তরা টাকার জন্য তার স্ত্রীকে চাপ দিতে থাকে। গত বুধবার সন্ধ্যার দিকে সোহাগ ও তার স্ত্রী পারুল এবং অন্তু তার বাড়িতে যায় এবং তার স্ত্রীকে টাকা পরিশোধের জন্য চাপ দিতে থাকে। তিনি টাকার বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানালে প্রথমে অভিযুক্তরা লিপিকে মারপিট করে। এরপর তিনি মাটিতে পড়ে গেলে তার হাত পা চেপে ধরে একটি বোতল থেকে বিষ ঢেলে তার মুখের মধ্যে জোর করে ঢুকিয়ে দেয়া হয়। সে সময় তিনি বাড়িতে গেলে তার স্ত্রীকে মুমূর্ষ অবস্থায় দেখতে পান। মুখদিয়ে সাদা ফ্যানা বের হতে থাকে। ওই সময় অভিযুক্তরা তাকেও মারপিট করে এবং ফের হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়। পরে লিপিকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ বিষয়ে লিপি বেগমকে হাসপাতালে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানিয়েছে, আসামিরা প্রথমে তাকে বিষ মুখে ঢেলে দেয়। পরে তিনি ওই বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন।

এ বিষয়টি নিয়ে কথা হয় কোতয়ালি থানার এসআই ফজলুর রহমানের সাথে। তিনি জানিয়েছেন, ‘আমার কাছে রফিকুল ইসলাম ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ আছে। ওই ঘটনাটি তদন্ত করার জন্য ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। রফিকুলের দায়ের করা অভিযোগটি আমি তদন্ত করছি না। তবে টাকা পয়সা লেনদেন নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে একটি বিরোধ হয়েছে এটা বোঝা যাচ্ছে। ’

তিনি আরো জানিয়েছেন, ‘পারুল ও তার স্বী সোহাগ ওই বাড়িতে গিয়েছিল। সে সময় তাদের সামনে লিপি হ্যান্ডসানিটাইজার খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। বরং তারা (পারুল ও সোহাগ) লিপিকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছে বলে প্রাথমিক ভাবে জানতে পেরেছি।’