নারী নির্যাতন ও সহিংসতার প্রতিবাদে যশোরে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক : সারা দেশে নারী নির্যাতন ও সহিংসতার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট যশোর। মঙ্গলবার বিকেলে শহরের দড়াটানা ভৈরব চত্ত্বরে এই কর্মসূচিতে বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সাধারণ পথচারীরাও হাতে হাত ধরে অংশ নেয়। এ সময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, যারা সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করে তাদের মধ্যে শক্তি ও আধিপত্যের উৎস থাকে। এক ধরনের অনিয়ন্ত্রিত জৈবিক তাড়নার কারণে ধর্ষকরা এ ধরণের কাজ করে। কেউ ক্ষমতার দম্ভে অন্ধ হয়ে গেলে তখনই তাদের বিবেক মরে যায়। নেতৃবৃন্দ বলেন, নারী নির্যাতনকারীরা কোনো দলের বা মতের হতে পারেনা তারা অপরাধী। জোটের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তরিকুল ইসলাম তারুর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জেলা মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তন্দ্রা ভট্টাচার্য্য, বাঁচতে শেখার নির্বাহী পরিচালক অ্যাঞ্জেলা গোমেজ, শহীদ কর্নেল জামিল স্মৃতি সংসদের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসেন দোদুল, সাংস্কৃতিকজন সুকুমার দাস, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক মাহামুদ হাসান বুলু, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সাজেদ রহমান বকুল, রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদের সভাপতি শ্রাবনী সুর, ফারাজি আহমেদ সাঈদ বুলবুল, উদীচী যশোরের সহসভাপতি অ্যাড. আমিনুর রহমান হিরু, ভৈরবের সভাপতি সায়েদা বানু শিল্পী, সাইরা বানু শিল্পী, জয়তী সোসাইটির পক্ষে বর্ণালী সরকার, অগ্নিবীণার সভাপতি শাহানাজ পারভীন, বাউলিয়া সংঘের সাধারণ সম্পাদক পরিতোষ বাউল, শফিকুল ইসলাম প্রমুখ। সঞ্চালনা করেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার আলম খান দুলু। নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমানে এমন এক সংকটময় সময় অতিবাহিত হচ্ছে  যেখানে নারীদের  কোনো ধরনের নিরাপত্তা নেই। ভোগবাদী সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে নারী নির্যাতনের নির্মম বাস্তবতা লুকিয়ে আছে। চরম নির্যাতনের শিকার হয়েও আবার দফায় দফায় নারীকেই প্রমাণ করতে হয় যে তিনি নির্যাতিত। বক্তরা বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে নারী নির্যাতনসহ হত্যা, ধর্ষণ ভয়াবহ দিকটি কত প্রকট হয়ে উঠছে তা প্রতিদিনকার পত্রিকার পাতা খুললেই আমাদের চোখের সামনে ধরা দেয়। যা সামাজিক ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। নারীর প্রতি এসব সহিংসতা বন্ধে সামাজিক প্রতিরোধসহ আইনের সঠিক প্রয়োগে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, প্রশাসন ও রাষ্ট্রকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।