ভারতে সংঘবদ্ধ ধর্ষণে দলিত তরুণীর মৃত্যু, দেশজুড়ে ক্ষোভ

স্পন্দন আন্তর্জাতিক ডেস্ক :  উচ্চবর্ণের চার দুর্বৃত্তের সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার নিম্নবর্ণের এক তরুণী (১৯) ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লির একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার পর দেশটিতে ব্যাপক ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। প্রায় দুই সপ্তাহ আগে ধর্ষণের শিকার ওই তরুণী গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় উত্তরপ্রদেশে যৌন সহিংসতার শিকার হন ওই তরুণী। এ ঘটনায় জড়িত চার ধর্ষককে আট করেছে দেশটির নিরাপত্তাবাহিনী। তার মৃত্যুর খবরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ধর্ষকদের বিচারের দাবি জোরাল হয়ে উঠেছে।

স্থানীয় গণমাধ্যমকে পুলিশ জানিয়েছে, উত্তরপ্রদেশের হাঠরাস জেলার একটি মাঠে ওই তরুণীকে তুলে নিয়ে যায় অভিযুক্ত চার ব্যক্তি। পরে সেখানে তাকে ধর্ষণ করে। ধর্ষকদের হামলায় গুরুতর আহত হন ওই তরুণী।

ধর্ষণের শিকার তরুণী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার মারা গেছেন বলে তার ভাই বিবিসিকে নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেছেন, ঘটনার প্রথম ১০ দিনে কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। তাকে মৃত্যু ভেবে ফেলে রেখে যায় ধর্ষকরা। তবে হাসপাতালে ১৪ দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করেছে সে।

indian-rapist-1

নিহত তরুণীর পরিবার দেশটির ইংরেজি দৈনিক ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে বলেছে, এ ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত ওই এলাকায় নিম্নবর্ণের তরুণীদের সবসময়ই হয়রানি করতো।

রাজ্যের বিরোধী দলগুলো ধর্ষণের এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে। মঙ্গলবার এক টুইট বার্তায় দলিত রাজনীতিক ও উত্তরপ্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মায়াবতী বলেছেন, ধর্ষণের শিকার তরুণী পরিবারকে সব ধরনের সহায়তা দেয়া উচিত সরকারের। অপরাধীদের দ্রুত বিচার আদালতে শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

রাজ্যের আরেক সাবেক মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব বলেছেন, নারীদের বিরুদ্ধে অপরাধের ঘটনায় সরকার সংবেদনশীল নয়। দলিত রাজনীতিক ও মানবাধিকার কর্মী চন্দ্রশেখর আজাদ গত সপ্তাহে ধর্ষণের শিকার তরুণীকে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলেন। ওই তরুণীর মৃত্যুর ঘটনায় দেশজুড়ে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে দলিত রাজনীতির দলগুলো।

indian-rapist-1

হিন্দু ধর্মে শ্রেণি বিন্যাসের কারণে দলিতদের ভারতের সবচেয়ে নিচু জাতের হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই বর্ণের মানুষ দেশটিতে নানা ধরনের বঞ্চনার শিকার হন। আইনে তাদের সুরক্ষার কথা বলা হলেও বৈষম্য যেন তাদের নিত্যদিনের নিয়তি। ভারতে দলিত শ্রেণির অন্তত ২০ কোটি সদস্যের বসবাস রয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে উত্তরপ্রদেশের এই তরুণীর ধর্ষণ এবং মৃত্যুর ঘটনায় অসংখ্য মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। ২০১২ সালে চলন্ত গাড়িতে দেশটির এক মেডিক্যাল শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের পর ছুড়ে ফেলা হয়। সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই তরুণী মারা যান। তার মৃত্যুর সঙ্গে উত্তরপ্রদেশের এই তরুণীর মৃত্যুর তুলনা করে অনেকেই বিচারের দাবি তুলেছেন।

সেই সময় বিশ্বজুড়ে ব্যাপক আলোড়ন তৈরি করে দিল্লির ওই মেডিক্যাল শিক্ষার্থী ধর্ষণ ও মৃত্যুর ঘটনা।