আইপিএলে ধোনি-জাদেজাদের ‘টেস্ট কিং’ বললেন শেবাগ

ক্রীড়া প্রতিবেদক :  সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে জয়ের অনেক সুযোগই ছিলো চেন্নাই সুপার কিংসের সামনে। ১৬৫ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে টপঅর্ডারদের ব্যর্থতার পরেও মাত্র ৭ রানের ব্যবধানে হেরেছে চেন্নাই। অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি ও বাঁহাতি অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজার লড়াইয়ে ১৫৭ রান পর্যন্ত করতে পেরেছিল তারা।

তবে ম্যাচশেষে চেন্নাইয়ের পরাজয়ের কারণ হিসেবে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হচ্ছে ধোনি-জাদেজাকেই। কেননা চতুর্থ উইকেট পতনের পর দুজনের জুটির শুরুটা ছিল খুবই মন্থর। যখন দুজন জুটি বাঁধেন তখন ৮.২ ওভারে চেন্নাইয়ের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৪২ রান। সেখান থেকে ১৫ ওভার শেষে তাদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৪ উইকেটে ৭৯ রান।

অর্থাৎ জুটি বেঁধে প্রথম ৪০ বলে মাত্র ৩৭ রান যোগ করেছেন ধোনি ও জাদেজা। ইনিংসের একপর্যায়ে অবস্থা এমন ছিল, জাদেজা ১৬ বলে করেছেন মাত্র ৮ রান, ধোনি ১৯ বলে করেছিলেন মাত্র ১৬ রান। তাদের এমন মন্থর শুরুর পর যে বাড়তি চাপ দেখা দেয় শেষদিকে, তা আর জয় করতে পারেনি চেন্নাই।

শেষের পাঁচ ওভারে চাহিদার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে মাত্র ৩৫ বলে ৫০ রান করে আউট হন জাদেজা। অধিনায়ক ধোনি ৩৬ বলে ৪৭ রান করে অপরাজিত থেকে যান। কিন্তু জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ১৬৫ রান করতে পারেনি চেন্নাই। তাদের ইনিংস থেমে যায় ১৫৭ রানে। তাও স্যাম কুরান মাত্র ৫ বলে ১৫ রান করায় দেড়শ ছাড়ায় চেন্নাইয়ের ইনিংস।

এমন পরাজয়ের পর স্বাভাবিকভাবেই সমালোচনার মুখে পড়েছে চেন্নাইয়ের ব্যাটিং। ভারতের সাবেক অধিনায়ক ও মারকুটে ওপেনার ভিরেন্দর শেবাগ সরাসরি টেস্ট কিং অর্থাৎ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে টেস্টের রাজা উপাধি দিয়ে ফেলেছেন চেন্নাইয়ের ব্যাটসম্যানদের। একইসঙ্গে প্রশংসা করেছেন হায়দরাবাদের তরুণ ব্যাটসম্যানদের।

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে ভিরুর বৈঠক নামক অনুষ্ঠানে শেবাগ বলেছেন, ‘সবসময় ক্যুল এটিচ্যুডের জন্য বিখ্যাত চেন্নাই। কিন্তু এবার তারা নিজেদের পরিকল্পনায়ই বোকা হয়ে গেছে। আচ্ছা হায়দরাবাদ কি ম্যাচটা জিতেছে? নাকি চেন্নাইয়ের টেস্ট কিংরা ভাবছিল যে, তারা এখন নেট প্র্যাকটিস করছে?’

ম্যাচ বিশ্লেষণ করে তিনি বলেন, ‘বুদ্ধির সঙ্গে শক্তির এক লড়াই ছিল শুক্রবারের ম্যাচটি। ওয়ার্নারের মতো শক্তিশালী ক্রিকেটারের সঙ্গে ধোনির বুদ্ধিসম্পন্ন ক্রিকেটারের লড়াই। তারা বলে যেকোনো ম্যাচ জিততে শক্তির সঙ্গে বুদ্ধির মেলবন্ধন হওয়া লাগে। কিন্তু শুক্রবার শুধুমাত্র শক্তি দিয়েই চেন্নাইয়ের সকল পরিকল্পনা মাটিতে মিশিয়ে দিয়েছে হায়দরাবাদ।’

‘চেন্নাইয়ের সিনিয়র দলটি ভেবেছিল, যেহেতু হায়দরাবাদের চার উইকেট পড়ে গেছে, তাই তারা শেষ। যখন দুই তরুণ প্রিয়াম গার্গ ও অভিষেক শর্মা ব্যাটিংয়ে নেমেছিল, তখন হয়তো ভাবছিল, এই বাচ্চারা আর কী করবে? কিন্তু এই বাচ্চারাই দুর্দান্ত। তারা চেন্নাইকে সমানভাবে কেটে সাইজ করে ফেলেছে।’