বেনাপোল পৌরসভার নির্বাচন দাবি নাগরিকদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রায় ১০ বছর ধরে বেনাপোল পৌরসভার নির্বাচন হচ্ছেনা সীমানা জটিলতা মামলার কারণে। বর্তমান মেয়র নিজের অনুগত লোকদের দিয়ে এসব মামলা করে নির্বাচন বাঁধাগ্রস্থ করছেন। এতে নাগরিকরা যেমন তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন, তেমনি সরকারের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। যেকারণে পৌরসভার দ্রুত নির্বাচন করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। গতকাল রোববার বেলা ১২টার দিকে প্রেসক্লাব যশোরে সাংবাদিক সম্মেলনে এই দাবি জানান বেনাপোল পৌরবাসী নামে নাগরিক কমিটির নেতৃবৃন্দ।

লিখিত বক্তব্য বেনাপোল পৌরবাসী নাগরিক কমিটির আহবায়ক মোস্তাক  হোসেন স্বপন জানান, দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল। ইতমধ্যে এটি এশিয়ান হাইওয়ে হিসেবে এটি স্বীকৃতি পেয়েছে। সরকার বন্দরটি থেকে সবমিলিয়ে বছরে ১০ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আদায় করে থাকে। সে কারণে বেনাপোল পৌরসভাকে প্রথম শ্রেণিতে উন্নীত করেছে সরকার। অথচ এর কোন সুফল পৌরবাসী পাচ্ছেনা। দীর্ঘদিন নির্বাচন না হওয়ায় জনপ্রতিনিধিরা কেউ নাগরিক সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসছেনা। এতে নাগরিক ভোগান্তি বেড়েছে বেনাপোলে।

লিখিত বক্তব্য বলা হয়, বর্তমান মেয়র নিজে ক্ষমতায় টিকে থাকতে তার অনুগত কয়েকজনকে দিয়ে ৯টি মামলা করেছেন সীমানা নির্ধারণ নিয়ে। এতে নির্বচান প্রক্রিয়া থমকে গেছে। আমরা পৌরবাসী গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন দেখতে চাই। তাহলে পৌর নাগরিকদের অধিকার প্রতিষ্ঠা পাবে। মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। যদি এমপি নির্বাচনে মামলার কেনো সমস্যা না হয়ে থাকে তাহলে স্থানীয় সরকার নির্বাচন কেন থেমে থাকবে। এজন্য বেনাপোল পৌরবাসী এক হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। তিনি যেন নির্বাহী আদেশে বেনাপোলসহ দেশের ১৬টি পৌরসভা  (যেগুলো মামলার কারণে স্থগিত) নির্বাচনের ব্যবস্থা করেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো: নূরুজ্জামান, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহ আলম, বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্মসম্পাদক মহাসিন মিলন, বেনাপোল বাজার কমিটির সভাপতি আজিজুর রহমান, বেনাপোল ইউপি চেয়ারম্যান বজলুর রহমান, বেনাপোল কলেজের শিক্ষক নওশের আলী, শরিফুল আলম তুহিন, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অহিদুজ্জামান অহিদ প্রমুখ।