বেনাপোলে ফেনসিডিল দিয়ে দুই  যুবককে ফাঁসানোর অভিযোগ পরিবারের

শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল : বেনাপোলের সাদিপুর সীমান্ত থেকে ২৫০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার দেখিয়ে দুই যুবককে থানায় সোপর্দ করেছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা। তবে, তাদেরকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে বলে আটককৃতদের পরিবারের অভিযোগ। রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে বেনাপোলের রঘুনাথপুর বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা তাদেরকে সাদিপুর সীমান্ত থেকে আটক করেন।

আটককৃতরা হলো, বেনাপোল পোর্ট থানার সাদিপুর গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে আমিরুল ইসলাম ও একই গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে আবু হুরায়রা।

এ বিষয়ে ৪৯ ব্যাটালিয়নের রঘুনাথপুর বিজিবি ক্যাম্পের হাবিলদার দেলোয়ার হোসেন বলেন, রোববার রাত সাড়ে ৮ টার সময় তাদের দুইজনকে ফেনসিডিলসহ আটক করা হয়। এর মধ্যে আমিরুলের কাছ থেকে  ১০০ বোতল ও হুরায়রার কাছ থেকে ১৫০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। তাদের উভয়ের নামে আলাদা মামলা দিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। মামলা নম্বর -৪৪ ও ৪৫। তারিখ ২৬/১০/২০। তবে, ফেনসিডিলের মূল মালিক সাদিপুর গ্রামের নেদার ছেলে মোরাদ হোসেনকে তারা চিহ্নিত করেছেন এবং তাকে আটকানো প্রক্রিয়াধীন বলে জানান তিনি।

বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মামুন খান থানায় সোপর্দের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন আটককৃতদের সোমবার সকালে যশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে আটককৃতদের পরিবারের সদস্যরা জানান, রবিবার রাতে তারা চা পাতির চালান আনতে সাদিপুর গ্রামের এক চোরাচালানীর জন দিতে সাদিপুর সীমান্তের মাঠের মধ্যে গেলে বিজিবি সদস্যরা তাদেরকে আটক করে ফেনসিডিল দিয়ে মামলা দিয়েছে।

থানার ভিতর কথা হয় আটককৃত আমিরুল ও আবু হুরায়রার সাথে। তারা বলে, রাতে তারা চা পাতা আনতে সীমান্তের মাঠের ভিতর গেলে আগে থেকে ধরে রাখা ২৫০ বোতল ফেনসিডিল দিয়ে তাদেরকে মামলা দিয়েছেন বিজিবি সদস্যরা। তবে, ফেনসিডিলের মালিক কে, তা বিজিবি সদস্যরা জানেন।