২০৩০ সালে ডিজেল-পেট্রলচালিত গাড়ি বন্ধ করবে যুক্তরাজ্য

স্পন্দন আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ২০৩০ সাল থেকে যুক্তরাজ্যে ডিজেল ও পেট্রলচালিত গাড়ি বিক্রি বন্ধ হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। সবুজ শিল্পবিপ্লবের অংশ হিসেবে আড়াই লাখ কর্মসংস্থান সৃষ্টি ছাড়াও জলবায়ু লক্ষ্য অর্জনের প্রচেষ্টায় কার্বন নিঃসরণ শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে এমন ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

তবে ব্রিটিশ সরকারের এই পরিকল্পনার সমালোচকরা বলছেন, এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য সরকার যে ৪০০ কোটি পাউন্ড বরাদ্দ করেছে তা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক অপ্রতুল। অবশ্য দেশটির বাণিজ্যমন্ত্রী অলোক শর্মা বলছে, ১ হাজার ২০০ কোটি পাউন্ড বরাদ্দের প্রাথমিক অংশ হলো এই ৪০০ কোটি পাউন্ড।

বিশ্বের শিল্পোন্নত দেশগুলোর জোট জি-৭–এর সদস্যদের মধ্যে যুক্তরাজ্য প্রথম দেশ হিসেবে গত বছর ২০৫০ সালের মধ্যে গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমন শূন্যের কোঠায় নামানোর জন্য আইন পাস করে।

গত ফেব্রুয়ারি মাসে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন অবশ্য পেট্রল ও ডিজেলচালিত গাড়ি বিক্রি বন্ধে ২০৩৫ সাল পর্যন্ত সময় দিয়েছিলেন। কিন্তু এখন সে সময় আরও কমিয়ে তিনি বলেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে আড়াই লাখ কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সাহায্য করবে এ পরিকল্পনা।

ব্রিটিশ সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী ২০৩০ সালের মধ্যে পেট্রল ও ডিজেলচালিত গাড়ি এবং ২০৩৫ সালের মধ্যে নতুন হাইব্রিড গাড়ি বিক্রি বন্ধ করবে দেশটি। উল্লেখ্য আগামী বছর জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের (কোপ-২৬) আয়োজক দেশ যুক্তরাজ্যে। তাতে সভাপতিত্ব করবেন দেশটির বাণিজ্যমন্ত্রী।

প্রযুক্তি ও নয়বানযোগ্য জ্বালানির ক্ষেত্রে বিনিয়োগের পরিকল্পনার কথাও বলেছেন জনসন। তার এ পরিকল্পনাকে বিভিন্ন শিল্প খাত থেকে স্বাগত জানানো হচ্ছে। ব্রিটিশ প্রধনামন্ত্রী জনসন বলেছেন, সবুজ পুনরুদ্ধারের পরিকল্পনা করার ও উচ্চ দক্ষতাসম্পন্ন চাকরি সৃষ্টি করার এখনই সময়।