গুরুর মুখে একি কথা শুনলেন মেসি !

স্পন্দন স্পোর্টস ডেস্ক : ম্যানসিটিতে যোগ দেয়া প্রায় নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল লিওনেল মেসির। বার্সেলোনা আইনি ঝামেলাটা না বাড়ালে হয়তো চলতি মৌসুমে ম্যানিসিটির জার্সি গায়েই খেলতে নামতেন তিনি। মূলতঃ গুরু পেপ গার্দিওলা থাকার কারণেই ম্যানসিটিতে যাওয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এই আর্জেন্টাইন ফুটবলার।

পেপ গার্দিওলাও চেয়েছিলেন, পুরনো শিষ্যকে নিজের কাছে টেনে নিতে। আবারও মেসি-গার্দিওলা জুটির মিলন ঘটবে, এ রোমাঞ্চেই যেন উজ্জীবিত ছিল পুরো ফুটবল বিশ্ব। কিন্তু বার্সেলোনা চুক্তি সম্পর্কিত জটিবলতা তৈরি করার কারণে আরও এক বছর ন্যু ক্যাম্পে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হন মেসি।

সবাই ধরে নিয়েছে, আগামী বছর বার্সার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর মেসি যোগ দেবেন ম্যানসিটিতেই। কিন্তু হঠাৎ করে তার গুরু পেপ গার্দিওলা একি বলে বসলেন? মেসিকে তিনি পরামর্শ দিচ্ছেন, বার্সেলোনাতেই থেকে যাওয়ার জন্য। শুধু এক-দুই বছরের জন্য নয়, চিরদিনের জন্যই মেসিকে ন্যু ক্যাম্পে থেকে যাওয়ার কথা বলছেন তিনি। তবে তিনি এটাও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে, চুক্তিগত সমস্যার কারণে আর্জেন্টাইন এই তারকার ক্যারিয়ারের ভবিষ্যৎ কি এখনই বলা সম্ভব নয়।

গত বৃহস্পতিবার ম্যানসিটির সঙ্গে আরও দুই বছরের জন্য চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন পেপ গার্দিওলা। এ সময়ই গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে যে, ক্লাব সম্ভবত মেসিকে আগামী মৌসুমে ইত্তিহাদ স্টেডিয়ামে নিয়ে আসার সব বন্দোবস্ত করে ফেলেছে। যদি মেসি আগামী বছর বার্সার সঙ্গে চুক্তি শেষ করে ফ্রি হয়ে যান।

কিন্তু এমন গুঞ্জনের মধ্যেই গার্দিওলা বলে দিলেন, ‘আমি মনে করে মেসিকে ক্যারিয়ারের শেষ পর্যন্ত বার্সায় থাকা উচিৎ হবে। তবে সে যদি চলেই আসতে চায়, তাহলে তার জন্য ম্যানসিটির দরজা সব সময় খোলা থাকবে।’

এক সংবাদ সম্মেলনে গার্দিওলা বলেন, ‘লিওনেল মেসি হচ্ছেন বার্সেলোনার খেলোয়াড়। যদি তার মত একজনের সম্পর্কে আমার মতামত জানতে চান, তাহলে আমি বলবো- বার্সায় আমার প্রচুর স্মৃতি রয়েছে। তারা আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। একাডেমি থেকে শুরু করে একজন ফুটবলার কিংবা একজন ম্যানেজার হিসেবে এই ক্লাবটি আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে।’

এ কারণেই মূলতঃ মেসিকে সেখানেই (বার্সায়) থেকে যাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন তিনি। গার্দিওলা বলেন, ‘এ কারণেই আমি চাই এই জায়গায় ক্যারিয়ার শেষ করুক সে (মেসি)। আমি এটাই চাইবো এবং এটাই আমার ইচ্ছা। অনেকবারই বলেছি এই কথা। তবে, বার্সার সঙ্গে তার চুক্তি শেষ হচ্ছে এই বছরই। এরপর কি ঘটবে আমি জানি না। কিন্তু এই মুহূর্তে সে বার্সেলোনার খেলোয়াড় এবং ট্রান্সফার মার্কেট ওপেন হবে আগামী বছর জুন-জুলাইয়ে।’