নরেন্দ্রপুরে ঐতিহ্যবাহী ষাঁড়ের লড়াই

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুরে ১,২ ও ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আয়োজনে শনিবার দিনব্যাপী গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ষাঁড়ের লড়াই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিযোগিতায় ধলিগাতীর মিন্টু মোল্লার লালপরি, পচাঁ মাগুরার মিলন হোসেনের সাদা পাগলা, কাঁটাখালীর হুমায়নের লালপরী, কাঁটাখালীর শমসেরের কালামানিক, আড়পাড়ার কিংকরের পাখি গরু, ধলিগাতীর রেজার কালো চিতা, টেকনাফ এর জনি ফরাজির লাল পাগলা, নওয়াপাড়া বেতারের মহাসিনের ব্লাক-ফাইটার, অভয়নগরের সরোয়ারের কালা পাহাড়, হরিশপুরের মেহেদী হাসানের সাদা পরিসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত ৩২টি ষাঁড় অংশ নেয়।

ঐতিহ্যবাহী এই ষাঁড়ের লড়াই দেখতে ভিড় করেন হাজার-হাজার দর্শনার্থী। জমজমাট এই ষাঁড়ের লড়াই দেখতে যশোর, নওয়াপাড়া, বাঘারপাড়া, মণিরামপুরসহ বিভিন্ন এলাকার হাজার-হাজার মানুষ ভিড় করে নরেন্দ্রপুর গ্রামের বেকার মোড়ে।

এদিন সকাল থেকে প্রথম রাউন্ডে ১৬টি ষাঁড় হেরে যায়। আড়পাড়া থেকে আসা কিংঙ্কর এর পাখি গরু এবং ধলিরগাতী থেকে আসা রেজার কালো চিতার মধ্যে ফাইনাল হয়। লড়াইয়ের পাখিগরু জয়ী হয়। এসময় মাঠের চারপাশে চলতে থাকে উৎসুক দর্শকদের উল্লাস। লড়াইয়ে অংশ নেওয়া কয়েকটি ষাঁড় পরাজিত ও জনতার ভিড় দেখে আতংঙ্কগ্রস্ত হয়ে নিরাপত্তা বেস্টনির বাইরে দর্শনার্থীর দিকে তেড়ে যায়। এসময় বেশ কয়েকজন আহত হয়।

প্রতিযোগিতা শেষে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানকারী ষাঁড়ের মালিকদের মাঝে প্রধান অতিথি হিসাবে পুরস্কার তুলে দেন যশোর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথ। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও আরবপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলাম।