ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ সোমবার, ২১ জুন , ২০২১ ● ৬ আষাঢ় ১৪২৮

চৌগাছায় বসতভিটা লিখে না দেয়ায় মারপিটের অভিযোগ

Published : Sunday 25-April-2021 20:57:25 pm
এখন সময়: সোমবার, ২১ জুন , ২০২১ ০৩:৩১:৪১ am

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছায় বসতভিটা লিখে না দেওয়ায় নারায়ন চন্দ্র পাল (৬০) নামে এক ব্যক্তিকে বেদম মারপিট করে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার স্বরুপদহ ইউনিয়নের তিলকপুর বাজারে।

চৌগাছা সরকারি মডেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নারায়ন চন্দ্র পাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘শনিবার সন্ধ্যায় তিলকপুর বাজারে আশাদুল ইসলামের মুদি দোকানের সামনে দাড়িয়ে ছিলাম। এ সময় গয়ড়া গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে ফারুক হোসেন, ইসলাম আলীর ছেলে মজনুর রহমান, নুর ইসলামের ছেলে একসের আলী ও আবু সাঈদের ছেলে সুমন রহমান আমার উপর হামলা চালায়। এ সময় তারা বাঁশের লাঠি, লোহার রড ও চার্জার লাইট দিয়ে আমাকে মারপিট করতে থাকে। আমি মাটিতে পড়ে গেলে তারা কিলঘুষি লাথি মারতে থাকে। এক পর্যায়ে আমি জ্ঞান হারায়। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে চৌগাছা সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন।

তিনি বলেন, উপজেলার গয়ড়া গ্রামে আমরা একটিমাত্র পরিবার হিন্দু। সেখানে আমি স্ত্রী সন্তান নিয়ে সকলের সাথে মিলে-মিশে বসবাস করে আসছি। কিন্তু গেল কয় বছর হামলাকারীরা  আমার বসতভিটা দখল করতে নানা ফন্দি-ফিকির করে আসছে। তারা দাবি করছে আমার বসত ভিটা তাদের নিকট আমি নাকি বিক্রি করতে বায়না স্বরুপ ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা নিয়েছি। এমন একটি জাল বায়নানামা ও দেখাচ্ছে তারা। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় গ্রামের মাতুব্বররা বসলেও তারা প্রমাণ করতে পারেনি। তাই জোর করেই আমার নিকট থেকে আমার বসতভিটা লিখে নিতে চায়। আমি রাজি না হওয়ায় তারা আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে হামলা চালিয়েছে।

এ ব্যাপারে ফারুক হোসেন মোবাইলে বলেন, ‘ভাই আমি আপনার সাথে সাক্ষাতে কথা বলবানে, বিষয়টি তেমন কিছুই নয়। ওকে মারা হয়নি ভান ধরে হাসপাতালে শুয়ে রয়েছে।’

এ ব্যাপারে গয়ড়া ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বর শিমুল হোসেন বলেন, শনিবার সন্ধ্যায় মার মারির ঘটনা আমার জানা নেই। তবে নারাণচদন্দ্র ও গয়ড়া গ্রামের গণ্যমান্য ব্যাক্তিরা বসেছেন কয়েকবার সালিশ হয়েছে বলে আমি জানি।

এ ব্যাপারে স্বরুপদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ আনোয়ার হোসেন বলেন, মারামারির ঘটনার  বিষয়টি স্থানীয় ভাবে মেটানোর চেষ্টা চলছে।