ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ রবিবার, ১৬ মে , ২০২১ ● ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

পাইকগাছায় প্রবল জোয়ারের চাপে নদ-নদীতে ভাঙন অব্যাহত

Published : Wednesday 31-March-2021 21:25:51 pm
এখন সময়: রবিবার, ১৬ মে , ২০২১ ০৬:০৫:৪৪ am

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি : পূর্ণিমার প্রবল জোয়ারে পাইকগাছার নদ-নদীতে স্বাভাবিক জোয়ারের থেকে ২-৩ ফুট পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদী ভাঙন অব্যাহত থাকায় জনমনে আতঙ্ক বাড়ছে। পানির চাপে পাইকগাছায় সোলাদানার পাটকেলপোতার শিবসা নদী ও কপোতাক্ষ নদের কাটিপাড়া এলাকায় ব্যাপক ভাঙন সৃিষ্ট হয়েছে। নদী ভাঙনের ফলে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী। পাইকগাছার সোলাদানা ইউনিয়নের পাটকেলপোতা সোনা বাড়ি এনপি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে শিবসা নদীর তীরে আবারো ভাঙন দেখা দিয়েছে। যে কোন মুহূর্তে শিবসা নদীর ওয়াপদার বাঁধ ভেঙে গোটা এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বুধবার সকালে আকস্মিক এ ভাঙন দেখা দেয়। গত আম্ফানে এ এলাকায় ভয়াবহ ভাঙনের কারণে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়। সরকারি অর্থায়ন ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিকল্প বাঁধ দেয়া হয়। পাইকগাছার কাটিপাড়া নামক স্থানে কপোতাক্ষ নদের ভাঙনে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়ে লাখ লাখ টাকার ক্ষয়- ক্ষতি হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে প্রবল জোয়ারে নদের তীরবর্তী এলাকায় মৎস্য, চিংড়ি ঘের, পানের বরজ, ধানসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষেত পানিতে ভেসে ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বাড়ি ঘর ও রাস্তা ঘাট। স্থানীয় চিংড়ি ঘের মালিক রমজান আলী জানান তার ঘের তলিয়ে যেয়ে ৫/৭ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। এখানে ১২টি চিংড়ি ঘের। জমির পরিমাণ প্রায় ৪ শ’ বিঘা জমি। চিংড়ি মৌসমী শুরু হয়েছে। আগামী অমাবশ্যতে সকলেই মাছ ধরার প্রস্তুতি নিচ্ছে। তার আগেই এ অবস্থার সৃষ্টি। স্থানীয়রা জানান কপোতাক্ষ নদের উপর ব্রিজ নির্মাণের কাজ চলছে। ২/৩ মাস আগে ব্রিজের জন্য বিশাল এলাকা খনন করে রাখে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। এক পাশে পুকুর ও অন্য পাশে বালি দিয়ে বাঁধ দেয়া হয়। যাকে বলে বালির বাঁধ। এতটাই নাজুক যা জোয়ারের পানির তোড়ে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। পানের বরজ, বোরো ধান ক্ষেত নষ্ট হয়েছে। বাড়িতে জোয়ারের পানি উঠে প্লাবিত। চেয়ারম্যান আঃ মজিদ গোলদার জানান, ব্রিজের কাজ ধীর গতিতে হওয়ায় ও ঠিকাদারের গাফিলতির কারনে এত ক্ষয়ক্ষতি হলো। ক্ষতিগ্রস্তরা প্রতিকার পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে। নদী ভাঙনের বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের এস.ও ফরিদ উদ্দীন জানান, হঠাৎ করে পূর্ণিমার অস্বাভাবিক জোয়ারে প্রায় ২ ফুট পানি নদীতে বৃদ্ধি পাওয়ায় এ ভাঙন দেখা দিয়েছে।